বেডরুম

বেডরুম

শীতের রাত ঘড়ির কাঁটা এগারোটা ছুঁই-ছুঁই এখনো প্রদীপ্ত-র ফোনটা নটরিচেবল হয়ে রয়েছে । এবার খুব দুশ্চিন্তা হচ্ছে ওর জন্যে এমনকি ওর চেম্বারের ফোনটাও রিং হয়েই চলেছে কেউ রিসিভ করছে না।
ঠান্ডার কামড়ে সারা শহর যেন কুপোকাত.. আদিগন্ত এক নিস্তব্ধতা..টিংটং-টিংটং….ডোর বেল টা বেজে উঠল…. দরজায় প্রদীপ্ত দাঁড়িয়ে…ওকে ভীষণ টায়ার্ড দেখাচ্ছে।

 

কিছু জানতে চাওয়ার আগেই ও বেডরুমে চলে গেল। প্রদীপ্ত একজন নামকরা ডাক্তার চেম্বার সামলে হয়তো আজ খুব টায়ার্ড হয়ে পড়েছে তাই আর কথা না বাড়িয়ে অনন্যা ডিনার রেডি করল…ফ্রেস হয়ে এসে ডিনার সেরে কোনো কথা না বলেই প্রদীপ্ত আবার বেডরুমে গিয়ে শুয়ে পড়ল,নিজের খারাপ লাগাকে উপেক্ষা করে হাতের কাজটা গুছিয়ে অনন্যা বেডরুমে ঢুকতেই মনে হলো সমস্ত শীতলতা যেন এই ঘরেই জাঁকিয়ে বসেছে। বিছানায় শুয়ে কম্বলটা গায়ে জড়াতে -জড়াতে প্রদীপ্ত র দিকে চেয়ে দেখল আপাদমস্তক কম্বল মুড়ি দিয়ে অঘোরে ঘুমোচ্ছে।

 

রাত তখন আড়াইটে.. অনন্যার ফোনটা রিং হচ্ছে.. একটা আননোন নাম্বার থেকে ফোন আসছে.. প্রদীপ্ত কে ডাকে অনন্যা, কোন সাড়া শব্দ নেই। একটু ইতস্তত হয়েই কলটা রিসিভ করে অনন্যা…’হ্যা…লো..’
“সরি অনু আজ একটা ওটি আছে ,আর এখানে ঝড়-বৃষ্টিতে নেটওয়ার্কের খুব খারাপ অবস্থা… আমি আমার এক কলিগের ফোন থেকে কল করছি.. আমি সকালে ফিরব.. তুমি একটু সাবধানে থেকো।”
অনন্যা:”কে…কে… বলছেন আপনি……”ঔ প্রান্ত থেকে উত্তর এল…”আরে অনু… আমি তোমার প্রদীপ্ত”।

সমাপ্ত

গল্পের বিষয়:
রহস্য

Share This Post

আরও গল্প

সর্বাধিক পঠিত