টিউশনি

টিউশনি

যেখানে থাকি সেখানে পড়ানোর জন্য কোন স্টুডেন্ট পাওয়া দুষ্কর। পাওয়া গেলেও হাতে গনা দু একটা, সেগুলে জোগাড় করতে হয় বড় ভাই আপুদের তেল মারার পর, কারন এখনকার যতগুলো মাধ্যমিক পর্যায়ের স্কুল আছে সেখানকার শিক্ষক গন পরিক্ষার খাতায় মার্ক কম দেওয়ার ভয় দেখিয়ে তাদের কোচিং কারানে হয়, অনেক খোজা খুজির পর এক বড় ভাইয়ের মাধ্যমে এক ছাত্রকে পড়ানোর ব্যবস্থা করে দিল, আর বললেন ছাত্র একটু ট্যারা ফাকিবাজ, এজন্য তোমায় পড়ানোর আগে তাকে পড়তে মানে জানতে হবে। আর সেখানে বেশিদিন কেউ টিকেতে পারে না। ভাইকে বললাম সমস্যা নেই, আমিও কি কম নাকি, সমস্যা হবে না ইংশাআল্লাহ। প্রথম যেদিন পড়াতে গেলাম, ছাত্র প্রথমে জিগ্যেস করলো…

ছাত্রঃ স্যার আপনার কাছে কি ফোন আছে।

আমিঃ হ্যা, কেন সমস্যা।

ছাত্রঃ না সমস্যা নেই তবে….

আমিঃ তবে কি,,,

ছাত্রঃ স্যার আপনি কি প্রেম করেন।

আমিঃ না কেন বলোতো।

ছাত্রঃ না মানে আগের বার যারা এসেছিল তারা সবাই প্রেম করতো আর আমায় পড়ানো বাদ দিয়ে প্রেমিকার সাথে চ্যাট করতো কথা বলতো। তাই বললাম আরকি যদি আপনিও…

আমিঃ সবাইকে কি এক পাল্লায় মাপা ঠিক না, সবাই এক না।

ছাত্রঃ স্যার আপনাকে কোন পাল্লায় মাপলাম, কাটা পাল্লা না ডিজিটাল পাল্লা দিয়ে, আমি তো জাস্ট বললাম। এখন বলতেছেন সবাই এক না কিছুদিন পর দেখব আপনিও তাদের মত।

আমিঃ আচ্চা সেটা পরে দেখা যাবে, এখন বই বের করে পর, আর কোনটা পারবানা সেটা আমায় বল।

ছাত্রঃ কেন স্যার যেটা পরবোনা সেটাই শুধু করাবেন আর বাকিগুলো কে করাবে। আর আমি যে সময়টা সহজ গুলো করবো সেসময় আপনার জিএফ এর সাথে চ্যাট করবেন বুজি। (কি ছেলে রে বাবা, সবসময় দেখি দুলাইন বেশি বুজে, ইচ্ছা করতেছে কানের নিচে দু তিনটা বসাই দি, কিন্তু না এটা তো আর এখন সম্ভব না, তাই মাথা ঠান্ডা রেখে তাকে বললাম)

আমিঃ আচ্ছা আমি শুনেছি তুমি খুব ভালো ছাত্র তবে এমন কর কেন, বলোতো।

ছাত্রঃ পাম মারবেন না, পামে আমি ফুলি না, আমার সাথে ভালো সেজে আমাকে ভালো ভালো কথা বলে আমাকে হাতে এনে আমার আপুর সাথে লাইন মারার ধান্দা তাই না।

আমিঃ কি সব আজে বাজে বক, তোমার আপুর সাথে কেন লাইন মারতে যাব, তোমার আপু আছে কি না সেটা আমি জানি নাকি, (একপ্রকার রাগ হয়ে),সব সময় বাজে বক।

ছাত্রঃ কই বাজে বলতেছি, বিশ্বাস না হলে আপুরে ডাক দি। আপু একটু এদিক আসো তো, ( আপু বলে ডাক দিলে একটি মেয়ে আসলো) আর এসেই বললো…

ছাত্রের বোনঃ বল কি হয়েছে ডাকতেছিস কেন আমার তারা আছে…

ছাত্রঃ না মানে…

ছাত্রের বোনঃ মানে মানে করতেছিস কেন বল কি বলবি।

ছাত্রঃ না মানে স্যারের নাকি পছন্দ হয়েছে তোকে তাই আর কি…

ছাত্রের বোনঃ কি বলসি এসব…

ছাত্রঃ সত্যি বলতেছি, তাই তো তোমায় ডাকলাম। বিশ্বাস না হলে স্যারকে জিগ্যেস করে দেখ।

ছাত্রের বোনঃ আপনি ওর নতুন টিচার তাই না,

আমিঃ হ্যা,

ছাত্রের বোনঃ আমার ভাই যা বললো তা কি সত্য।

আমিঃ আপনি দেখি…. আমি তো জানিনা যে ওর আপু আছে, আজই প্রথম আসলাম আর আপনাকে সবে মাত্র দেখলাম।

ছাত্রের বোনঃ ভয় পাচ্ছেন কেন, পছন্দ হয়ে থাকলে বলতে পারেন, আপনি দেখতেও সুন্দর, আমার ও পছন্দ হয়েছে আপনাকে, যদি আপনি হ্যা বলেন তো আজ থেকে…

(সেখানে আর এক মুহুর্ত থাকিনি, উঠে চলে এসেছি, এমন ছাত্র আর তার এমন বোন থাকলে কি আর টিউশনি করানো যায় আপনারাই বলেন) আমি চলে আসার সময় পিছনে তাকিয়ে দেখলাম তারা দুজনই হাসতেছে, তারমানে দুজন মিলে আমায় উফ আর ভাবতে পারছিনা। আমি কি, আমার চেয়ে এরা কয়েক শত ধাপ এগিয়ে আছে। ছাত্রের বোনঃ কি স্যার এসেই চলে যাচ্ছেন যে নাস্তাটা করে যান, আর কাল থেকে একটু তাড়াতাড়ি আসবেন কিন্তু দুজন মিলে একটু গল্পসল্প করে সময় পার করবো, মোবাইল নম্বরটা দিবেন না, রাতে কথা বলতাম। (মনে মনে বলতেছি, রাখ তোর নাস্তা নাম্বার, আমার জান নিয়ে টানাটানি আর টিউশনি, না খেয়ে থাকবো, ঘুমিয়ে দিন পার করবো তবু ভুলেও টিউশনিতে যাব না।)

গল্পের বিষয়:
গল্প

Share This Post

সর্বাধিক পঠিত