মন্ত্রির ছেলে

মন্ত্রির ছেলে

কলেজে ঢুকবো এমন সময় পিছল থেকে মিম ডাক দিল।

মিম:এই তোমাকে না বলেছি কলেজে আসতে না?

আমি:জি,কলেজটা আপনার বাবার না।

মিম:তোমার সাহস তো মন্দ না?

আমি:এখানে সাহসের কি হলো?

মিম:তুমি জানো আমি কে?

আমি:না,আর জানার চেষ্টাও করি না।

মিম:কি?এত বর কথা।আজি তুমাকে এই কলেজ থেকে বের করব!দারাও

আমি:হা হা হা!!জান জান মিম রাগে ফুসতে ফুসতে প্রিন্সিপালের রুমের দিকে গেল।অহ!আমার পরিচয়টাই ত দেওয়া হই নাই।আমি আহাদ আর ও মিম।ভার্সিটির প্রথম থেকেই আমার সাথে এরকম করে কিন্তু বেশি কিছু করে না।ওর বাবা পুলিশ কমিশনার আর ও একটু বেশি শুন্দর তাই অহংকার সাথে ভাব একটু বেশি।অনেক প্রপোস পেয়েছে কিন্তু acpt করে না।বেশি distrub করলে নাকি ওর বাবাকে দিয়ে শাহেস্তা করে।আমি দেখতে স্মার্ট কিন্তু থাকি খেত হয়ে।এই কারনে ও আমাকে দেখতে পারে না।এরই মধ্যে পিওন এসে বলে গেল প্রিন্সিপাল আমাকে ডেকেছেন।তাই উনার রুমের দিকে গেলাম:

আমি:may I come in,sir?

প্রিন্সিপাল:ys,come in.

আমি:স্যার,আমাকে নাকি ডেকেছিলেন?

প্রিন্সিপাল:হুম

আমি:কিসের জন্য?

প্রিন্সিপাল:তুমি নাকি মিম কে distrub করো?

আমি:জি না,তিনিই আমার সাথে আগে কথা বলতে আসেন

প্রিন্সিপাল:ওকে,nxt যদি শুনি তুমি মিমকে distrub করসো তাহলে তোমাকে t.c দিয়ে বের করে দিব

আমি:ঠিক আছে

প্রিন্সিপাল:এখন তুমি আসতে পার

আমি:ওকে চলে আসলাম।আমার সাথে মিমও বের হলো।বাহিরে এসে:

মিম:তা মি.আহাদ,কেমন দিলাম?

আমি:ভালো

মিম:এরপর থেকে জেন আমার সামনে না দেখি

আমি:চেস্টা করবো চলে আসলাম বারিতে।ফ্রেশ হয়ে খাবার খেতে গেলাম।তখন:

বাবা:আমার গুনধর ছেলে,আর কত দিন এইভাবে চলবে?

আমি:কি কত দিন চলবে?

বাবা:এই খেত হয়ে থাকা

বাবা:তুমি তো জানও আমার এরকম থাক্তেই ভাল লাগে

বাবা:তা তো জানি।কিন্তু সবাই কি বলে জানিস?

আমার নাকি টাকা নাই হইয়া গেছে

ভাইয়া:হুম।ওকে একদম বাজে দেখা জায়

আম্মু:ওটাই ভাল।কোন মেয় নজর দিবে না

ভাবি:আম্মা,এখনকার ছেলেরা এরকম হয় নাকি,যে রকম আমার দেবর

আমি:তোমরা কি শুরু করলে?১ মাস পর থেকে সব চেইঞ্জ করে ফেলব খাবার খেয়ে রুমে চলে আসলাম।আপনাদের তহ আমার পরিবার সম্পকে কিছু বলা হয় নাই।আমার পরিবারে মা-বাবা,ভাইয়া,ভাবি,ভাতিজা আর আমি।বাকিটা পরে জানতে পারবেন।তারপরের দিন কলেজে গেলাম।গেট দিয়ে ঢুকতে জাবও তখনি  খেলাম ধাক্কা।তাকিয়ে দেখলাম মিম।তারপর: গেট দিয়ে ঢুকতেই খেলাম এক ধাক্কা।খেয়াল করলাম এটা মিম।

আমি:সরি।আমি দেখিনি।

মিম:তোর সাহস অনেক বেরে গেছে না?দারা তোকে আজ মজা দেখাব।(এই বলে ওর বাবাকে ফোন দিল)বাবা,একটা ছেলে আমাকে distrub করে,তুমি কলেজে অসো।

ওপাশ:……..

মিম:আচ্ছা,তারাতারি আসো। কিছুখন পর মিমের বাবা আসলো।এসেই আমাকে একটা চর দিলো।তারপর: মিমের বাবা:এই ছেলে,তোর সাহস হলো কিকরে আমার মেয়কে distrub করার?

আমি:আমি দুঃখিত।

মিম:না বাবা,ওকে জেলে পুরে দাও।

আমি:এবার কিন্তু বেশি হয়ে জাচ্ছে।

মিম:কি বেশি হচ্ছে,হা?

মিমের বাবা:আচ্ছা,এবারের মত কিছু বললাম না,nxt time কোন অভিজোগ আসলে জেলে পুরে দিব।

আমি:ওকে চলে আসলাম সেখান থেকে।বারি এসে ফ্রেশ হয়ে ভাইয়ার রুমে গেলাম।তারপর:

আমি:ভাইয়া

ভাইয়া:হুম,বল

আমি:কাল থেকে আমি গারি আর গাড’ নিয়া কলেজে জাব

ভাইয়া:ঠিক আছে।কিন্তু হঠাত এত পরিবর্তন।কাহিনি কি?

ভাবি:দেখ কোন মায়ের প্রেমে পরছে

আমি:আরে সেরকম কিছু না।(সব খুলে বললাম)

ভাবি:আচ্ছা,সত্যি একটা কথা বলবা?

আমি:আমি কি মিথ্যা কথা বলি?

ভাবি:না তা না।বলছিলাম কি,তুমি কি মেয়টাকে ভালবাস নাকি?

আমি:সত্যি বলতে কি,হা

ভাইয়া:তাহলে প্রপোস কর

আমি:আগে অরে একটু টাইট দিয়া নেই তারপর বিয়ে করব।

ভাবি:তারাতারি করে ফেল

আমি:হুম পিছন দিয়ে আব্বু-আম্মু এসে:

আব্বু-আম্মু:ও এই বেপার।তা আমাদের বললে কি হতো শুনি?

আমি:তোমরা?

আম্মু:হা।তা বউমাকে কবে আনবি?

আমি:খুব তারাতারি

আব্বু:best of luck

আমি:tnx

তারপর রুমে এসে শুয়ে পরলাম।সকালে শুন্দর করে রেডি হয়ে দুটো গারি নিয়ে বের হলাম।একটাতে আমি আর আরেকটাতে গাড’রা। কলেজ কেম্পাসে গারি পার্ক করে নামার সাথে সাথে সবাই হা করে তাকিয়ে আছে।সবাই হয়ত ভাবছে খেত টাইপ পুলা আবার এরকম stylish আর গারি পেল কোই?একটু পর দেখি মিমও আমার দিকে হা কইরা তাকিয়ে আছে। ওর সামন দিয়া জাওয়ার সময় আমার সাথে কথা বলতে চেয়েছে কিন্তু আমার গাড’রা ওকে আসতে দেয়নি।ক্লাশে চলে গেলাম।সবার নজর আমার দিকে।মিম ক্লাশে ঢুকেই আমার সামনে এলো।

মিম:এই তুমি এগুলা কথাথেকে জোগার করেছ? (গাড’দের কে দেখিয়ে)

আমি:আমি কোন থাড’ ক্লাশ মেয়ের সাথে কথা বলি না

মিম:আমি তাড’ ক্লাশ?আজকে আবার বাবাকে ডাকবো?

আমি:জা করার করো।এই মেয়েকে বের কর এখান থেকে

মিম:বের হও আজ কলেজ থেকে,তারপর দেখাব

আমি:হা হা হা মিম ক্লাশ থেকে বের হয়ে গেল।আমিও ক্লাশ করতে লাগ্লাম।ক্লাশ সেশ করে বের হয়ে দেখলাম মিমের বাবা দারিয়ে রইছে।মিমও দারিয়ে রইছে।আমি গারিতে উঠবো তখন:

মিমের বাবা:এই দারা

আমি:বলেন

মিমের বাবা:মিম তাড’ ক্লাশ মেয়ে?

আমি:হুম

মিমের বাবা:ছোটলোক,দুইটা গারি আর কিছু পুলাপান আনলেই হিরো ভাবিস?

আমি:সেটা আমার বেপার

মিমের বাবা:আজ তোকে জেলে পুরে দিব।আয় আমার সাথে

আমি:দারান ৫ মিনিট(ভাইয়াকে ফোন দিয়ে আসতে বললাম)

একটু পর: মিমের বাবা:স্যার,আসসালামু (ভাইয়াকে বললো)

ভাইয়া:ওয়ালাইইকুম এখানে কি হইছে? মিমের বাবা:এই ফকিরের বাচ্চাটা আমার মেেয়কে থাড’ ক্লাশ বলেছে(আমি আর ভাইয়া মুচকি মুচকি হাসছি)

ভাইয়া:আমার বাবা ফকির?

মিমের বাবা:আপনার বাবা ফকির হতে যাবে কেন? তিনি একজন মন্ত্রি।

ভাইয়া:ও কে জানেন? মিমের বাবা:কে?

ভাইয়া:আমার একমাত্র ছোট ভাই মিম+মিমের বাবা:এহ!কি বলেন আপনি?তাহলে এতদিন এই অবস্তা কেন?

ভাইয়া:ওর ছোটবেলা থেকেই ইচ্ছে করে ওরকম থাকা।এরপর যদি শুনি আপনি আমার ভাইএর সাথে কিছু করছেন,তাহলে এমন অবস্তা করব যে জিবনেও আর উঠতে পারবে না

মিমের বাবা:ঠিক আছে।স্যার,আমি তাহলে আসি

ভাইয়া:হুম,আসুন।এই যে এই মেয়ে,তুমার বিশয়ে আহাদ সব বলেছে।এবার তুমাকে বুঝাবে কত ধানে কত চাল।

আমি:ভাইয়া, তুমি জাওতো।এসব থাড’ক্লাশের সাথে সময় নষ্ট করে লাভ নেই।একে আমি দেখে নিব।

ভাইয়া:আচ্ছা,আমি জাই।কিছু দরকার হলে আগে আমাকে ফোন দিবি।

আমি:ঠিক আছে

ভাইয়া:বাই।নিজের খেয়াল রাখিস।

আমি:তুমিও ভাইয়া আমাকে জরিয়ে ধরে কপালে একটা চুমু দিয়ে চলে গেল।এবার মিমের পালা।শুরু করলাম

অপমান:

আমি:এই থাড’ক্লাশ, এরপর থেকে জেন আমার সামনে না দেখি। মিম মাথা নিচু করে চলে গেল।আমি আর ক্লাশ না করে বাসায় চলে গেলাম। পরের দিন গেট দিয়ে ঢুকবো সে সময় দেখি মিম মাথা নিচু করে গেট দিয়ে বের হচ্ছে।ইচ্ছে করেই ধাক্কা খেলাম

আমি:ঠাস!!!এই থাড’ ক্লাশ চোখে দেখিস না?

মিম:(চুপ)

আমি:জা ভাগ মিম কাদতে কাদতে চলে গেল।আমি একটু পাশে এসে হাসলাম।এখন বুঝে কেমন লাগে।প্রায় প্রতিদিন ওকে অপমান করি।কিছু বলতে পারে না।এইতো আসছে।জাই কাদিয়ে আসি:

আমি:এই থাড’ ক্লাশ,এদিকে আয়

মিম:বলেন?

আমি:তুমি থেকে আপনি তে গেলি কবে?

মিম:আমায় মাফ করে দেন।আমি আর জিবনেও কোন ছেলের সাথে খারাপ ব্যাবহার করব না

আমি:তোকে করব মাফ।হা হা হা।

মিম:মাফ করে দিন!plz!!

আমি:এই সবাই দেখ মিম একটা থাড’ ক্লাশ ছেলের কাছে মাফ চাচ্ছে।(সবাই মিমকে দেখে হাসছে) মিম চলে গেল।আমিও ক্লাশ করে বারি চলে আসলাম।ফ্রেশ হয়ে ঘরে বসে আছি তখন:

ভাইয়া:আহাদ

আমি:জি

ভাইয়া:অনেক হইছে,এবার ছেরে দে ওকে।

আমি:কাকে?

ভাইয়া:মিমকে

আমি:তুমি জানলে কি করে?

ভাইয়া:ওর বাবা এসেছিল আমার কাছে

আমি:ঠিক আছে না,অনেক হইছে এবার ওকে মনের কথা বলে দিতেহবে।কলেজে আসার সময় ওর জন্য ফুল নিয়ে আসলাম প্রপস করব বলে।ঐতো আসছে।ডাক দিলাম:

আমি:মিম,এই মিম

মিম:বলেন

আমি:এদিকে আসো

মিম:আজকে ভালো ভাবে কথা বলছেন যে?

আমি:কারন I love u,mim

মিম:মজা করেন?

আমি:এখানে মজার কি আছে?

মিম:আপ্নিতো আমাকে দেখতেই পারেন না

আমি:কে বলেছে?(তারপর সব খুলে বলালম)

মিম:আমাকে মাফ করেন।আমি আমাএ ভুল বুঝতে পারছি

আমি:এখন চলো

মিম:কোথায়?

আমি:কাযি অফিস

মিম:কেন?

আমি:সবাই অপেক্ষা করছে

মিম:অপেক্ষা করছে মানে?

আমি:সব আগের থেকেই প্লান করা।এখন চল,বিয়ে করব

মিম:চলেন তারপর মিমকে বিয়ে করে ফেললাম।সবাইতো আগেই জানে।মিমের বারির লোকেও আগেই বলা হইছে।তাই কোন টেনসন নাই।

THE END

গল্পের বিষয়:
গল্প

Share This Post

আরও গল্প

সর্বাধিক পঠিত