কিছু ভালোবাসার নাম হয়না

কিছু ভালোবাসার নাম হয়না
আজ অফিস ফিরতি বউয়ের জন্য বেলি ফুল নিয়ে এলাম। মেয়েরা নাকি বেলি ফুল ভালোবাসে। বাসায় এসে কলিংবেল চাপতেই সেকেন্ডে দরজা খুলে গেলো। মনে হয় দরজার পাশেই দাঁড়িয়ে থাকে বউ। বহু বছরের অভ্যাস তাও না। নতুন বিয়ে। এক মাস হলো। বিয়ের এক সপ্তাহ পর থেকেই দেখি সে এতো দ্রুত দরজা খুলে দেয়। আজ দরজা খুলতেই আমার দিকে তাকিয়ে হাসলো। বললো, “বেলি ফুল এনেছ নাকি?”
বউকে অবাক করতে গিয়ে নিজেই অবাক হয়ে গেলাম। কি করে বুঝলো আমি বেলি ফুল এনেছি। কোনো জাদুকরী ক্ষমতা আছে নাকি বউয়ের। বিয়েও হয়েছে ফ্যামিলির পছন্দে। বিয়ের আগে তাই জানা বোঝার সুযোগও ছিল না।
আমার অবস্থা বুঝতে পেরেই যেন বউ বলে উঠলো, “বিয়ের পর থেকে রোজ শনিবারেই কোনো না কোনো ফুল এনেছ, প্রথম এনেছিলে লাল গোলাপ, তারপর গাজরা, তারপর কদম। আজও শনিবার। আজ ফুল আনবে জানতাম। আর দরজা খুলেই বেলি ফুলের গন্ধ পেলাম। আমার আলাদা কোনো জাদুকরী ক্ষমতা নেই। বুঝলে।” বলে মুচকি হেসে ঘরে চলে গেলো। আমি ফুলটা ড্রেসিং টেবিলে রেখে ফ্রেশ হয়ে চেঞ্জ করে দেখলাম টেবিলে খাবার সাজানো। খেতে খেতে জিজ্ঞেস করলাম, বেলি ফুল তোমার পছন্দ নয়? বউ উত্তর দিলো, ভালো লাগে, কিন্তু ফেভারিট নয়।
– তোমার কি ফুল পছন্দ?
— তুমি খুজে বের করো।
সেই শুরু, এক বছর ধরে খুজছি ওর পছন্দের ফুলটা। সাদা গোলাপ, কমলা গোলাপ, হলুদ গোলাপ, অর্কিড, হাসনাহেনা, রজনীগন্ধা, গন্ধরাজ, কনকচাপা, কাঠগোলাপ, পদ্ম, শাপলা, রঙ্গন এরকম বহু ফুল প্রতি সপ্তাহে এনে জিজ্ঞেস করেছি। ঘাসফুল অবধি এনেছি। তাও জানতে পারিনি বউয়ের পছন্দের ফুল। ফুল আনার পর সেটা সে ছুঁয়েও দেখেনা। খাওয়া দাওয়ার পর, সুন্দর করে শাড়ি পড়ে সেই ফুল কখনও খোপায়, কখনো কানের পাশে গুজে আমার সামনে আসে। তখন কি যে দারুন লাগে ওকে দেখতে। তবু মনে একটা দুঃখ থেকেই যায়, বউয়ের পছন্দের ফুলের নাম জানতে না পারার।
অবশেষে একদিন রেগে গিয়ে জিজ্ঞেস করলাম, পছন্দের ফুলের নাম বলো, নইলে সামনের সপ্তাহ থেকে ফুল আনা বন্ধ। এবার একটু কাজ হলো। বললো, আচ্ছা বলছি। আমার নামই আমার পছন্দ। ধপ করে মনে পড়লো, বউয়ের নাম বকুল। মানে বকুল ফুল পছন্দ! সবসময় ‘বউ’ বলে ডাকতে ডাকতে ওর নামটাই ভুলে গেছিলাম। আর বকুল ফুলের নামটাও মনে পড়েনি। শব্দ করেই বলে উঠলাম, “ধ্যাত”।
এমন সময় বউ পিছন থেকে এসে গলা জড়িয়ে ধরে বললো, তুমি প্রতি সপ্তাহে আমার জন্য একেকরকম ফুল আনো, সেটাই আমার সবচেয়ে পছন্দ। বকুল ফুল পাওয়ার আনন্দের চেয়েও বেশি পছন্দ। এরপর থেকে আবারো প্রতি সপ্তাহে একেকরকম ফুল এনে দেই ওকে। তবে বকুল ফুল দেইনা। বকুল ফুল তো ঘরেই আছে, তাছাড়া পছন্দের ফুল এনে দিলে যদি অন্য ফুল গুলোর গ্রহণযোগ্যতা কমে যায় ওর কাছে। আমারো তো প্রতি সপ্তাহে একেকরকম ফুল খুঁজে খুঁজে বউকে এনে দিতে দারুন ভালো লাগে।

গল্পের বিষয়:
ছোট গল্প

Share This Post

সর্বাধিক পঠিত