সিংহের নৈশভোজ

সিংহের নৈশভোজ

সাত পাহাড় নামে আফ্রিকায় একটি জায়গা ছিলো। জায়গাটি প্রাণীরা খুব পছন্দ করতো। সেখানে সুপেয় পানি আর সবুজ ঘাসের প্রাচুর্য। থাকলেই বা কী হবে! প্রাণীদের কারো মনেই সুখ-শান্তি নেই। এর একটা কারণও আছে। সেই সাত পাহাড়ে বাস করতো এক শক্তিশালী সিংহ। সিংহটি প্রতিদিন দু-তিনটি করে প্রাণী ধরে খেয়ে ফেলতো।

একারণে একদিন সব প্রাণীরা মিলে সিংহের কাছে গেলো। তাদের মধ্যে একজন সিংহকে বললো, “সিংহ মশাই, একটা কথা বলতে এসেছি! প্রতিদিন সাত পাহাড়ের মাঝে দৌড়াদৌড়ি করে শিকার করা আপনার একদম মানাই না। আপনার একটা মান-সম্মান আছে। তার বদলে আমরাই আপনাকে প্রতিদিন একটা করে প্রাণী পাঠিয়ে দেবো।”

সিংহটি বললো, “ঠিক আছে। আমি খুবই ক্ষুধার্ত। প্রতিরাতেই আমার একটা করে প্রাণী চাই! তবে আরেকটা কথা, তোমরা যদি একদিন আমাকে খাবার পাঠাতে ভুলে যাও, আমি তোমাদের ভিতর থেকে যতজনকে ইচ্ছা ততজনকে হত্যা করবো।’

প্রাণীরা বললো, “আমাদেরকে মারবেন না। আমরা অবশ্যই প্রতিদিন একটা করে প্রাণী পাঠিয়ে দেবো।”

তারপর থেকে তারা প্রতিদিন একটি করে প্রাণী পাঠাতে লাগলো। কিন্তু এতেও প্রাণীরা সুখী হতে পারলো না। তাদের সবাই চিন্তায় থাকতো, “কালকে বোধহয় আমার পালা!”

এরপর একদিন সিংহের নৈশভোজের জন্য একটি খরগোশকে নির্বাচন করা হলো। এটা জানতে পেরে খরগোশ ‘হো হো’ করে হাসতে লাগলো। খরগোশটি সবাইকে বললো, “এটা খুব ভালো খবর। আমি যাবো। কিন্তু তোমরা নিশ্চিত থেকো, সিংহ আমাকে খেতে পারবে না।”

তারপর খরগোশটি নদীর দিকে দৌড়াতে শুরু করলো। নদীর কাছে পৌঁছেই সে পানিতে ঝাঁপ দিলো। তার সারা গায়ে কাঁদা লেপ্টে গেলো। সে তার নোংরা শরীর নিয়েই সিংহের কাছে গেলো। সিংহ তাকে দেখে তো রেগেমেগে অস্থির।

সিংহ বললো, “আমার জন্য নোংরা প্রাণী পাঠানো! দাঁড়াও দেখাচ্ছি মজা!”

খরগোশ বললো, “মহাশয়, আমি আপনার খাবার নই। আমি আপনার জন্য বড় একটা খরগোশ আনতে গিয়েছিলাম। কিন্তু পথের ভিতর অন্য একটি সিংহের সাথে দেখা হলো। সেই সিংহটা আপনার জন্য আনতে যাওয়া খরগোশটাকে নিয়ে চলে গেলো।”

সিংহ জিজ্ঞাসা করলো, “আমি ছাড়া সাত পাহাড়ে আবার সিংহ আসলো কোথা থেকে?”

খরগোশ বললো, “হ্যাঁ মহাশয়, আছে! সিংহটা কিন্তু অনেক বড় এবং শক্তিশালী। আমার তো মনে হলো, আপনার চেয়েও শক্তিশালী।”

সিংহ এবার আগের চেয়েও বেশি রেগে গেলো। খরগোশকে বললো, “সিংহটাকে আমাকে দেখাও তো। ওর পিণ্ডি আমি চটকে দেবো।”

খরগোশ বললো, “ঠিক আছে, চলুন তাহলে।”

এরপর খরগোশটি সাতপাহাড়ে অবস্থিত একটা বড় পুরাতন কুয়ার কাছে নিয়ে গেলো। খরগোশটি কুয়ার ভিতর তাকিয়ে বললো, “দেখুন মহাশয়, সিংহটি ওখানে। আর ওই যে খরগোশটি তার সাথেই আছে।”

সিংহটি কুয়ার ভিতর তাকালো। সিংহ নিজেকে এবং খরগোশটিকে পানির ভিতর দেখতে পেলো। সে কুয়ার ভিতরে অন্য সিংহ আর খরগোশ আছে মনে করে করলো। তাদেরকে ধরার জন্য সিংহটি কুয়ার ভিতর লাফ দিলো। এরপর সিংহটি আর সাত পাহাড়ে ফিরে এলো না! কুয়ার ভিতরেই অক্কা পেলো। প্রাণীরা সবাই খুশি হলো। তারা আনন্দে লাফালাফি করতে লাগলো, নাচতে লাগলো। বুদ্ধিমান খরগোশটাকে ধন্যবাদ দিতেও তারা ভুলে গেলো না।

গল্পের বিষয়:
ছোট গল্প

Share This Post

আরও গল্প

সর্বাধিক পঠিত