মুড সুইং

মুড সুইং

গার্লফ্রেন্ড মাত্র অনলাইনে আসল। সাথে-সাথেই মেসেজ দিলাম…

-কই ছিলা এতক্ষণ?

-রুমেই..

-তাহলে, ফোন দিলাম…ধরলা না যে?

-শুয়ে ছিলাম।

-ওহ্..আজকে তো ফ্রাইডে, আমাদের না বিকেলে বের হওয়ার কথা?

-ওহ্..

-ওহ্ কী! বের হবা না?

-হচ্ছি, রেডি হই।

-আচ্ছা..

এই ফাঁকে আমিও একটু রেডি হয়ে নিলাম। ফ্রেশ হলাম, চুলগুলা স্পাইক করলাম, রুমমেট নাই তাই এই সুযোগে তার বডি স্প্রেটাও একটু গায়ে মেরে নিলাম।

নোটিফিকেশন লাইট জ্বলছে। গার্লফ্রেন্ড মেসেজ দিয়েছে…

-আচ্ছা শুনো..আজকে আর বের না হই।

-বের হবা না?

-না..

-কোনো প্রবলেম?

-না..

-ওহ্…আচ্ছা।

মেসেজে ওহ্ আচ্ছা লিখেছি ঠিকই; কিন্তু আমার মন তো আর মানে না। গুগল করে একটা মন খারাপের স্ট্যাটাস কপি করে ফেসবুকে পোষ্ট করলাম। তারপর কানে ইয়ারফোন গুজে একটা মন খারাপের গান শুনতে লাগলাম।

ফ্রেন্ডগুলা আমার মন খারাপের পোষ্টে হাহা দিতেছে আর উল্টাপাল্টা কমেন্ট করতেছে। আমি সেদিকে পাত্তা দিলাম না।

আমার ইগোওয়ালা গার্লফ্রেন্ড কোনো সময় আমারে বুঝবেও না, আর আমরে আগে আগে কোনো সময় মেসেজও দিবে না। তাই বাধ্য হয়ে আমিই দিলাম…

-চলো না বের হই…

-না বাবু, থাক আজকে।

-আরে চলো, একসাথে হাঁটব, ফুচকা খাবো, মজা হবে অনেক।

-ইমরান, তুমি কী আমারে নাইন-টেন এর বাচ্চা মেয়ে পাইছ, যে আমারে ফুচকা-চটপটির লোভ দেখাও?

-তা আবার কখন বললাম!

-থাক হইছে, আর মন খারাপ করতে হবে না। আমি বের হচ্ছি।

-সিরিয়াসলি?

-হুম…

আমি আবার লুঙ্গি খোলে প্যান্ট পরলাম। বসে বসে কষ্টের স্ট্যাটাসটাতে ফ্রেন্ডদের কমেন্টগুলায় অ্যাংরি রিয়েক্ট দিতেছি, তখুনি গার্লফ্রেন্ড আবার মেসেজ দিল..

-বের হবো না আজকে। আর শুনো আমি একটু ঘুমাব, ঘন্টা খানেক আমারে ফোন-টোন দিও না।

আমি মেসেজের কিছু একটা রিপ্লাই দিতে যাব তখুনি দেখি সে অফলাইনে চলে গেছে। মনে মনে দু’চারটা গালাগাল দিয়ে আমি আবার নোটিফিকেশন চেক করতে শুরু করে দিলাম। দেখি গার্লফ্রেন্ডও আমার পোষ্টে হাহা দিয়ে গেছে। মনডায় চায়…টুট টুট টুট।

কষ্টের স্ট্যাটাসটা ডিলিট করে দিলাম। ফোন স্ক্রল করতেছি। মিনিট কয়েক পরে দেখি আমার গার্লফ্রেন্ড আবার অনলাইনে। আমি আবারও তারে মেসেজ দিলাম..

-অনলাইনে যে, তুমি না ঘুমাও?

-হুম, কিন্তু ঘুম আসছে না।

-ওহ্..চলো না বের হই। বাইরে বের হলে তোমার মন এমনিতেই ভালো হয়ে যাবে।

-উঁহু..

-আরে চলো তো…চলো আজকে তোমারে আমি কাচ্চি খাওয়াব।

-আরেকদিন খাওয়াইয়ো।

-ওফ্ফ..আজকের দিনটা কী আরেক দিন ফেরত পাওয়া যাবে?

-আমরা আরেকটা দিনকে আজকের দিন বানিয়ে নিবো, তাহলেই হবে।

-হবে না, চলো…

-হবে, হবে…

-আচ্ছা চলো, আমি তোমাকে আজকে একটা ড্রেস কিনে দিব।

-সিরিয়াসলি বাবু?

-হুম..বললাম তো।

-ওকে, আমি রেডি হচ্ছি..

-তাড়াতাড়ি করো, সন্ধ্যা হয়ে গেল কিন্তু।

-হচ্ছি, হচ্ছি…

আমি তাড়াতাড়ি নিচে নেমে অবকাশের দোকান থেকে ক্যাশ আউট করছি, তখুনি আবার সে মেসেজ দিল…

-থাক আজকে…

-মানেডা কী!

-ড্রেস আরেক দিন কিনে দিও।

-তোমার হইছেডা কী বলো তো, তখন থেকে এমন করতেছ ক্যান?

-কিছু না..

-কিছু তো একটা হইছে, বলো আমারে।

-আরে বললাম তো কিচ্ছু না, এমনি।

-উঁহু…কী হইছে বলো। এমন মুড সুইং করতেছে ক্যান তোমার, পিরিয়ড?

-আরেহ্ না..

-আরে বাবা..পিরিয়ড হইলে আমারে বললে কী প্রবলেম, কী হইছে বলো?

– বা** হইছে। মুড সুইং করলেই পিরিয়ড, না!

-তো, কী হইছে বলবা?

-পেট খারাপ হইছে..

গল্পের বিষয়:
ছোট গল্প

Share This Post

আরও গল্প

সর্বাধিক পঠিত