সূর্য আর চাঁদ যেকারণে আকাশে থাকে

সূর্য আর চাঁদ যেকারণে আকাশে থাকে

অনেক কাল আগে, সূর্য আর জল খূব ভালো বন্ধু ছিলো। তারা একসাথে পৃথিবীতেই থাকতো। সূর্য প্রায়ই জলকে দেখতে যেত। কিন্তু জল কখনো সূর্যকে দেখতে আসতো না। অবশেষে একদিন সূর্য জলকে জিজ্ঞেস করলো, কেন তুমি আমাকে দেখতে আসো না? জল বললো, সূর্য তোমার বাড়িটি খুব বেশী বড় না। আর আমি যদি আমার সব লোকজনকে নিয়ে বেড়াতে আসি তবে তোমাকে তোমার বাড়ির বাইরে থাকতে হতে পারে। জল তখন বললো, তুমি যদি সত্যিই চাও যে আমি তোমার বাড়ি বেড়াতে আসি তবে তোমাকে একটা অনেক বড় ঘর বানাতে হবে। কিন্তু আমি তোমাকে আগেই সতর্ক করছি, আমার কিন্তু অনেক লোকজন এবং তাদের থাকবার জন্য অনেকগুলি ঘর লাগবে। সূর্য তখন কথা দিলো যে সে একটা বিশাল বাড়ী বানাবে। এবং খুব তাড়াতাড়ি সে তার বউ চাঁদকে বাড়ীতে নিয়ে আসবে। চাঁদ যেন সুন্দর হাসি দিয়ে সব অতিথিদেরকে স্বাগত জানাতে পারে। সূর্য এরপর চাঁদকে নিয়ে আসলো এবং সব কথা বউকে বললো। এর পরদিন থেকে তারা দুজনে মহাউৎসাহে বাড়ি বানাবার কাজে লেগে গেল তাদের অতিথিদের জন্য। বাড়ী বানানো একসময় শেষ হয়ে গেল। সূর্য তার বন্ধু জল ও তার সঙ্গীদেরকে তার বাড়িতে নিমন্ত্রন করলো। জল যখন তার সঙ্গীসহ সূর্যের বাড়ীতে বেড়াতে আসলো। জলের একজন সঙ্গী সবার আগে এসে সূর্যেে কাছে জানতে চাইলো এটা জলের প্রবেশের জন্য নিরাপদ কী না। সূর্য জবাব দিলো, অবশ্যইÑ আমার বন্ধুকে ভেতরে আসতে বলো। জল তখন স্রোতের মতো ভেতরে ঢুকতে শুরু করলো। সাথে সাথে এলো অনেক মাছ ও অন্যান্য অনেক জলজ প্রাণী। খুব তাড়াতাড়ি বাড়ীতে হাটু সমান জল হয়ে গেল। জল জিজ্ঞেস করলো, এটি এখনো নিরাপদ তো? সূর্য বললো, হ্যাঁ। অবশ্যই। আরো অতিথিদেরকে ভেতরে আসতে বলো। এরপর জল ঢুকতে ঢুকতে মানুষের মাথার সমান হয়ে গেল। জল তখন জিজ্ঞেস করলো, তুমি কী চাও যে আমার আরো সঙ্গীরা প্রবেশ করুক? ঋালমন্দ না বুঝেই সূর্য ও চাঁদ জবাব দিলো, হ্যাঁ। এরপর জলের আরো সব সঙ্গীরা প্রবেশ করলে ঘর ডুবে গেল। এবং সূর্য আর চাঁদ বাড়ীর ছাদে গিয়ে বসে রইলো। এরপর আবারও জল জিজ্ঞেস করলো, আমার আরো সঙ্গীরা ঢুকতে পারবে তো? সূর্য আর চাঁদ বললো, হ্যাঁ। সুতরাং আরও অনেক অনেক জল চলো আসলো। পুরো এলাকা জলে ভরে গেল। বাড়ীটিও পুরোপুরি জলে ডুবে যাবার উপক্রম হলো। তখন সূর্য আর চাঁদ আকাশে উঠে যেতে বাধ্য হলো। .. . এবং এখনো তারা সেখানেই আছে।

গল্পের বিষয়:
ছোট গল্প

Share This Post

আরও গল্প

সর্বাধিক পঠিত