সপ্নের পরী

সপ্নের পরী

সকাল বেলা ফোনের শব্দে ঘুম ভেঙে গেল…

…….. চোখ বন্ধ করেই ফোনটা ধরে বললাম

…..হ্যালো

….এই শিমুল …কই তুই কি করছিস

…..এই তো ঘুমাচ্ছিলাম

…এখনো ঘুমাচ্ছিস…. মানিকের বিয়েতে যাবি না

…হুম যাব তো

….কখন আসবি

…..এই তো ফ্রেস হয়েই চলে যাব

…… তুই কখন যাবি

……আমি তো প্রায় চলেই এসেছি

…… তুই জলদি আয়………okkk .

ও আপনাদের তো বলায় হয়নি

….আমি শিমুল ডক্টরেট পাশ করে আপাতত বাবার ক্লিনিকে বসেছি

……সরকারি চাকরির জন্য দরখাস্ত করেছি

….আর যার সাথে কথা বললাম ওর নাম অাতিকুর

….আর বিয়ে হচ্ছে মানিকের

… আমরা ৩জন খুব ভালো বন্ধু

…..পরসু মানিকের বিয়ে… তাই ওর বাসায় যাচ্ছি

…. কথা শেষ করে ফ্রেস হয়ে কিছু কাপড় নিয়ে নিচে এলাম

… ..আম্মু আম্মু …

….বলো…..কোথায় যাচ্ছ………

…আম্মু পরসু মানিকের বিয়ে

… তাই এক সপ্তাহ ওদের বাসায় থাকব

.…হুম্ম শুধু বন্ধুদের বিয়েই খেয়ে যাও

….কতবার বলতেছি বিয়ে করো

…বিয়ে করো

… আমার কথা আর শুনবে

…আম্মু আবার

…তুমি তো জানোই

…… আমার স্বপ্নে দেখা সেই পরীকে খুজে পেলেই বিয়ে করব

….তারপরও কেন এই কথা বলো

….স্বপ্ন কি কখনো সত্যি হয়….

…আম্মু তুমি দোয়া করলে সব হবে আর আমার বিশ্বাস আমি একদিন তাকে ঠিকই খুজেঁ পাব

….আল্লাহ যেন তোমার মনের আসা পূর্ণ করে ..ধন্যবাদ মম

…উম্মা………

….নাস্তা করে বেরিয়ে পরলাম

….বিকেল এর মধ্যেই পৈছে গেলাম ঠিকানা আগেই জানা ছিলো

…….তাই কোন সমস্যা হয়নি

…গিয়ে দেখি সবাই আড্ডা মারতেছে হবু বর কে নিয়ে

… আমি গিয়ে বললাম

…কি খবর হবু বর কেমন লাগতেছে

….যখন তোর সময় আসবে দেখিস কেমন লাগে ( মানিক )

… আ রে ওর সময় আসতে আসতে আমরা কেউ থাকব না অাতিকুর …কেন ভাইয়া (রুবেল ) রুবেল হলো মানিকের কাজিন

… আর বলনা তার নাকি স্বপ্নের রাজকন্যা আছে

… সেই ৭ বছর ধরে শুনতেছি…

…কিন্তু চেহারা দেখেনি……

…শুধু তার হাসি তার লম্বা চুল আর তার হেটে চলে যাওয়া দেখেই নাকি পরীর মতো লাগে

….আর সেই দেখে ওনি তাকে খুজে চলেছেন…

…… কতো মেয়ে দেখাইছি….

…কেউই নাকি তার পরীর মতো নয়…

…. অাতিকুর … হা হা হা

….ওই সবাই হাসিস কেন…

…দেখিস একদিন ঠিকই খুজেঁ পাব…

…. তখন তোরা সবাই হাআ করে আমার পরীকে দেখবি……

…বুঝেছিস

…হুম বুঝেছি

…হা হা হা…(মানিক)

… ভাইয়া চিন্তা কইরেননা আমাদের গ্রামে আর বিয়ে বাড়িতে দেখুন হয়তো পেতেও পারেন (রুবেল)

….এতোবড় শহরে খুজে পাচ্ছিনা

……সে এই গ্রামে কি করে থাকবে

……( আমি) …ঠিক বলেছিস

..…গ্রামে এমন মেয়ে অসম্ভব (মানিক)

…হইছে এইবার ফ্রেস হয়ে নে

…কাল গায়ে হলুদ এর প্ল্যান করতে হবে

….কে কে যাবে আর কি পরবি সবাই(মানিক)

…তোর বউ কে ফোন দিয়ে শোন ওরা কি পরবে (অাতিকুর )

…হুম দিব

…রাতে

… ( মানিক ) রাতে সবাই খেয়ে বাহিরে আড্ডা মারতেছি

…তখন মানিক বলল চল শারমিন কাছে শুনি ওরা কি করতেছে

…. ( শারমিন হলো মানিকের হবু বউ)

…ওকে ফোন দে

… (অাতিকুর )

…..হ্যালো (শারমিন)

…..কি করছ জানু (মানিক)

…এই তো কালকের অনুষ্ঠানের আয়োজন চলছে(শারমিন)

…তোমরা কি পরবে সবাই (মানিক)

…লাল হলুদ শাড়ি

…আর শোনোতোমাদের যারা আসবে সবাইকে পাঞ্জাবি পরে আসতে বলবা (শারমিন)

… মানিক বলল আচ্ছা ঠিক

….কি ভাই তোর সইতেছেনা

….এই খান থেকে কে যেন বলে উঠলো

…..বলেই সবাই হেসে উঠলো

……সেই হাসির মাঝে আমি যেন আমার পরীর হাসি খুজে পেলাম

…..কিন্তু এইটা নতুন কিছু নয়

…..আমি সব সময় ই ওর হাসি শুনতে পাই

…ফোন রেখে সবাই ঘুমিয়ে পরলাম

…ওহ বলাই তো হয় নি মানিক আর শারমিন প্রেম করে বিয়ে করতেছে

….. সকালে আমরা সবাই রেডি হয়ে কনে বাড়ি তে গেলাম

….গিয়ে দেখি অনেক ভালই সাজিয়েছে

…… শারমিন কে দেখলাম একটা স্টেজ এ বসে আছে তার পাশে লাল হলুদ শাড়ি পরা কয়েকটা মেয়ে

…. আমি শারমিনের কাছে গেলাম যেহেতু ওরা প্রেম করে বিয়ে করতেছে তাই শারমিনকে আগে থেকেই চিনি

..… …কি শারমিন ..কি অবস্থা (আমি)

….জি ভাল…তারপর আপনার পরীর দেখা মিললো (শারমিন )

….আ রে এখনো পেলাম না তাকে

…. ও এখনো লুকিয়ে বেড়াইতেছে (আমি)

….চিন্তা কইরেননা পেয়ে যাবেন ধর্য্য ধরেন (শারমিন) হটাৎ ফোন বেজে উঠলো

…. দেখি আম্মু ফোন করেছে…. আমি ধরে বললাম

….আম্মু বলো

….কই এখন তুমি

…কিছু খেয়েছ. (আম্মু) মা বাবার একমাত্র সন্তান তো তাই তাদের জান আমি

.…… হুম্ম আম্মু আমি খেয়েছি চিন্তা কইরোনা

….শোন ওইখানে তোমার পরীকে খুজে দেখ

….সবাই বিয়ে করে ফেলেছে

…… আমাদেরও তো বউ দেখার ইচ্ছে হয় নাকি…

….আম্মু আবার

….শহরেই পাইনি

…এইখানে এই গ্রামে কই থেকে আসবে ও

….. কথা শেষ না হতেই একটি হাসির শব্দ পেলাম

…এ এইটা তো আমার পরীর হাসি…কিন্তু কোথায় থেকে আসতেছে

……আমার পাশে একটু দূরে তাকিয়ে দেখি

…. একটি মেয়ে ফুলের ডালা হাতে দাড়িয়ে আছে আর অন্য হাত দিয়ে চোখটা ঢেকে রেখেছে

….শুধু তার ঠোঁট টা আর পাগল করা হাসিটা দেখা যাচ্ছে

…..আমি তো অবাক হয়ে তাকিয়ে দেখছি

……ও বলছে …সবুজ ভাইয়া দয়া করে ফ্যান টা সরান plzzx

……তার কথা বলার স্টাইল আরও বেশি পাগল করা

……সামনে তাকিয়ে দেখি একটি ছেলে ওর দিকে ফ্যান ধরে আছে যার কারণে ওর চোখ দেখা যাচ্ছে না

…আর ফুল গুলো ওর দিকে উরে যাচ্ছে

…সবমিলিয়ে একটা হলুদ পরী

…. হলুদ পরী এই জন্য বললাম যে সবাই লাল পরেছে আর সে শুধু হলুদ পরেছে

….সব লাল হলুদ

…..চুল গুলো বেনী করে একদিকে দিয়েছে আর এক দিকে একটি হলুদ ফুল

………আমি তো তার দিকে অপলক ভাবে তাকিয়ে আছি

গল্পের বিষয়:
সাইন্স-ফিকশন

Share This Post

সর্বাধিক পঠিত