নিজেদের ভুল

নিজেদের ভুল
এক বান্ধবী ভাবী আছেন। তাকে দশ বছর ধরে চিনি। বিয়ের সময় স্বাভাবিক ওজন ছিল। দেখতে বেশ ছিমছাম ও আকর্ষনীয় ছিলেন। হঠাৎ করে প্রথম বাচ্চা হওয়ার পরই গানিতিক হারে ওজন বাড়তে শুরু করল। মানে ৪৫ কেজি ওজনের ভাবীর ওজন বেড়ে হয়েছেন ৭০ কেজি। থেমে নেই ওজন বাড়ার এই হার, দিন দিন বাড়ছে। দুঃখের বিষয় হলো পুরো ব্যাপারটা নিয়ে তার কোনো ভাবান্তর নেই। পুরো দুনিয়া চোখে আঙ্গুল দিয়ে তাকে ওজন বৃদ্ধির সমস্যাটা দেখিয়ে দিলেও সে নিশ্চুপ। একদিন ইচ্ছে করেই সুযোগ বুঝে প্রসঙ্গক্রমে বললাম। ” ভাবী এরকম ওজন বাড়ছে, ব্যায়াম করেও কোনভাবেই কমছে না। ডায়েট শুরু করতে হবে মনে হয়। আপনি কী করেন ভাবী ওজনের জন্য।” তিনি তাচ্ছিল্যর হাসি হেসে বললেন
” ওজনের জন্য আবার কিছু কেন করব? আমরা কী নায়িকা না-কি! যে ওজন কমাতে হবে। দুনিয়ায় আসছি খাওয়া দাওয়া করার জন্য খেয়ে দেয়ে চলে যাব।” আমি তো পুরোই তব্দা খেয়ে গেলাম তার কথা শুনে
” আসলে ভাবী নায়িকার জন্য না। নিজের সুস্থ ও সুন্দর থাকার জন্যও তো ওজন কমানো উচিত।”
” আলহামদুলিল্লাহ ভাবী সুস্থ আছি। বিয়েশাদি হয়ে গেছে বাচ্চাও হয়ে গেছে সুন্দর দিয়ে আর কী করব!”
“সেটা ঠিকই বলেছেন। বিয়ে হলেই বরং বেশি সুন্দরের দরকার। পুরুষ মানুষ সুন্দর ছাড়া কিছু বুঝে না।”
উনি মনে হয় আমার কথায় ভীষণ মনোক্ষুন্ন হলেন ” কী বলেন ভাবী এসব। সব পুরুষ সমান না। আপনার ভাই পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়েন।” আমি বুঝতে পারলাম, আমার বক্তব্য অপাত্রে দান করেছি। উনি কখনো সমস্যা বুঝবেন না।
এটাতো একটা উদাহরন মাত্র, এমন হাজারও উদাহরন আছে। অনেক মেয়েরা বিয়ের আগে রূপ সৌন্দর্যের ব্যাপারে যথেষ্ট সচেতন থাকে। বিয়েরপরই হুট করে যেন খেই হারিয়ে পেলে জীবনের। কিন্তু কেন আমার জানা নেই।
সারাক্ষণ আগোচালো এলোমেলো হয়ে থাকেন বরের সামনে। অথচ কোথাও যাওয়ার প্রসঙ্গ এলেই সুন্দর ড্রেসটা পরেন, সাজগোজ করেন। অথচ আপনার সৌন্দর্য দেখার অধিকার কেবল আপনার স্বামীর। ছেলেদের কাছে পাশের বাসার ভাবীকে ভালো লাগে। কারণ সে ভাবী বরের চেয়ে বেশি প্রেজেন্টবল হয়ে থাকে দেবরের সামনে ( দুঃখিত সবাই এক রকম নয়)। আপনাকে বুঝতে হবে পুরুষরা জন্মগতভাবে সৌন্দর্য পিপাসিত। তাকে আপনি আপনার রুপ, সৌন্দর্য, ব্যক্তিত্ব আর কর্মদক্ষতা দিয়ে একান্ত নিজের করে নিন। তাঁর কাছে যেন কোনভাবেই আপনার চেয়ে বেশি সুন্দর পাশের বাসার ভাবীকে মনে হতে না পরে।
সবচেয়ে বড়কথা সৌন্দর্য হচ্ছে শক্তি। শারীরিক শক্তি এবং মানসিক শক্তি। আপনি যদি সুস্থ থাকেন, সুন্দর থাকেন, স্লীম থাকেন। আয়নার সামনে দাঁড়ালেই আপনার আত্মবিশ্বাস বেড়ে যাবে। বহুদিন পর শুনতে পেলাম। বর পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়েন সে বিশ্বাসে বিশ্বাসী বউয়ের বর পরকীয়ায় আসক্ত। যাই হোক বরের জন্য নয়, অন্যের জন্য নয়, কেবল নিজের জন্য সুস্থ থাকুন, সুন্দর থাকুন।
গল্পের বিষয়:
দু:খদায়ক
loading...

Share This Post

আরও গল্প

সর্বাধিক পঠিত