বিয়ের পর আম্মু বউকে রান্না শেখাবে

এইযে এদিকে

– আমাকে বলছেন ?

– জ্বী ! আপনার নাম রানা না ?

– জ্বী ! আপনি কিভাবে জানেন ?

– আমিতো আপনাকে দেখেই চিনেছি ! আমি নিশি !

– চুয়িট নেম !
কিন্তু আপনারে আমি চিনি না !

– ফাজলামি করেন !
আরে আমি আদ্রিতা নিশি

– বাহ এটা আরো চুয়িট নেম !
কিন্তু
এই নামে কাউকে আমি চিনি না !

– দেখেন ফাজলামি করবেন না ! আমি কিন্তু এখন
চলে যাবো !

– খাবার অর্ডার দিছেন কিছু ?

– দিয়েছি ! এবার বলেন আপনি মোঃ ফেরদৌস রানা না ?

– জ্বী আপনি ঠিক ধরেছেন !

– তাহলে এতক্ষণ ফাজলামি করতেছিলেন কেন ,?

– আপনার নিজের উপর কতো কনফিডেন্স আছে
দেখলাম !

– দেখা হয়ে গেছে ?

– জ্বী !

– এবার চলেন

– কই যাবো ?

– পালাবো আরকি !

– কি করবেন ?

– পালাবো

– কি ?

– পালাবো !

– বাসায় জানে ?

– পাগল নাকি বাসায় জানবে কীভাবে ! বাসা
থেকেতো আমাকে ঐ খ্যাত লোকটার সাথে
বিয়ে দিয়ে দিচ্ছিলো !

– কোন খ্যাত লোক ?

– ঐযে আপনাকে ফেসবুকে
বললামনা সাব্বির না কি যেনো নাম !

– সাব্বির সাহেবের সমস্যা কি ? ভোটকা ? মাথায় টাক ?

– আরে নাহ ! আমিতো উনারে দেখেইনাই ! নাম
শুনেইতো খ্যাত খ্যাত লাগে ! আব্বু জোর করে
ঐব্যাটার নাম্বার ফোনে সেভ করে দিছে !

– নজরুল সাহেবের নিক নেম ছিলো দুখু মিয়া
শুনতে পুরাই খামার খামার লাগে তারপরেও স্মার্ট
জেনারেশানের পোলাপান উনার গানরে রেপ
করে শুনি !

– স্কিউজ মি ! কাকে রেপ করে ?

– কাকে রেপ করবে ?

– আপনিযে মাত্র বললেন

– আরে আমি রেপ গানের কথা বলছি ! রেপ গান
চিনেন না ? ধরেন কেউ যদি আপনার পিঠে পিস্তল
ঠেকিয়ে বলে হারামজাদা গান গা
গান বন্ধ হইলেই তুই খতম !
তখন আপনি যে গান গাইবেন সেটে হলো
রেপ ! যেমন
তোরাসবজয়ধ্বনিকরওনতুনেরকেতনউড়েক
ালবৈশাখিঝড়তোরাসবজয়ধ্বনিকর

– এটা রেপ গান ?

– হেঁ ! আর মাঝখানে পিস্তলের গুতা খেয়ে
ইয়ো ইয়ো করলেই রেপ হয়ে যাবে !

– ফেসবুকে আপনাকে দেখে বুঝা যায়না আপনি
এতো কথা বলেন

– আপনি আমাকে ফেসবুকে কোন গলিতে
দেখছেন ?

– আরে প্রো পিক দিছেন না ! পিছনের দিক হলে
কি হইছে আমি ঠিক আপনাকে চিনে ফেলেছি !

– বাহ আপনার বুদ্ধিতো চরম ! একবারে সেই
লেভেলের ! পিছন দিকের ছবি দেখে সামনে
দিয়া চিনে ফেলছেন !

– চলেন যাবেন না ?

– খেয়ে যাই ?

– আচ্ছা আমি বললাম আর আপনি চলে আসলেন আমার
ঠিক বিলিভ হচ্ছে না !

– আপনার নখ কাটা আছে ?

– জ্বী কেনো ?

– নখ কাটা থাকলে একটা চিমটি দিয়ে দেখতেন
তাহলে বিলিভ হইতো !
নখ বড় থাকলে দেয়ার দরকার নাই

– সেটার দরকার নাই !

– আচ্ছা বলেন তো আপনার সাথে আমার কয়দিন কথা
হয়েছে ?

– এইতো গত সাপ্তাহে আপনাকে নক দিলাম !
আসলে গতকালকে রাত্রে আব্বুর সাথে ঝগড়া
করেই আপনাকে ম্যাসেজ দিয়ে বলেছিলাম
এখানে দেখা করার জন্যে !
আমি ভাবছি আপনি আসবেন না ! তারপরেও রিস্ক
নিলাম !

– আমি এখন পর্যন্ত যতগুলো নিশি নামের
মেয়েকে চিনি তাদের সবাইর মাথার তার দুই চারটা
ছিঁড়া !

– তাই নাকি ! কয়জন নিশিকে চিনেন আপনি ?

– আপনি সহ একজন !

– হিহিহি ! আমার কিন্তু সত্যি মাথার তার ছিড়া উল্টাপাল্টা কিছু
বললে কামড়ায়ে দিবো !

– আগে কাউকে কামড়াইছেন ?

– অনেক জনকে !

– তাদের জলাতংঙ্ক রোগ হইছে ?

– না !

– তাহলে ঠিকাছে !

– আচ্ছা আপনিতো আমাকে ফেসবুকে
দেখেছেন তারপরেও চিনেন নাই কেনো ?

– আপনাদের মেকআপ বহুত কাজের একটা জিনিস !
এটার কারণে মেয়েদেরকে একদিন ইংল্যান্ডের
রাণী ভিক্টোরিয়ার মতো লাগে তো আরেকদিন
আমেরিকার রাণী মিশেল ওবামার মতো !

– আমাকে আজকে কেমন লাগছে ?

– থাপ্পর প্রুফ মেকআপ চিনেন ?

– নাতো !

– এই মেকআপ করলে আপনারে কেউ থাপ্পড়
দিলেও গালে লাগবেনা সব আটা ময়দার উপর দিয়া
যাবে !

– এইযে মিস্টার আপনি কিন্তু আমাকে ইনসাল্ট
করতেছেন ! আমি কিন্তু এতো মেকআপ করি না !
আমি এমনিতেই অনেক সুন্দর !
পারলে গালে হাত দিয়ে দেখেন !

– গালে হাত দিলে সাব্বির সাহেব যদি রাগ করে !

– সাব্বির রাগ করবে কেনো !

– যদি কর ?

– করলে করবেবে ! খাবার এসে গেছে আপনি
এখন খেয়ে বিদায় হোন ! কালকে ঠিক সন্ধ্যা
সাতটায় এখানে থাকবেন পালানোর জন্যে রেডি
হয়ে ঠিকাছে ?

– ঠিকাছে !

-?আপনার নাম্বারটা দেন তো !

– নাম্বার দিয়ে কি করবেন ?

– আরে পালানোর প্ল্যাণিং করতে হবে না
ফোনে ! বেকুব কোথাকার !

– একটা মেয়ে একটা ছেলের কাছে নাম্বার চাইবে
এটা ঠিক মিলে না !

– তাহলে আপনি আমার নাম্বার নেন ০১৯৪১
– নিয়েছি !

– এবার ফোন দেন

– কেনো ?
– যাতে আপনার নাম্বারটা আমি পাই ! চেয়ে
নিতেতো খারাপ লাগে !

– বাহ কি বুদ্ধি আপনার !

– দেখেছেন ঐব্যাটা কতো হারামী আমাকে
কল দিচ্ছে

– কোন ব্যাটা

– ঐযে সাব্বিররা ! আব্বু আমার নাম্বারটা দিয়ে দিছে
মনেহয় !

– আহালে !

– আপনি কল দিচ্ছেন না কেনো !

– দিচ্ছি তো

– কই দিচ্ছেন ? আমি দেখতেছি সাব্বির কল দিচ্ছে

– ঠিক দেখেছেন ! সাব্বিরই কল দিচ্ছে !

– সাব্বির ক ও মাই গট ! ও মাই গড ! আচ্ছা আপনিই সাব্বির
না তো

– আমারতো তাই মনে হচ্ছে !

– ত্তা ত্তাহলে ব্যপারটা কি হলো ? আপনিই সাব্বির
আপনিই রানা

– জ্বী ! আসলে হয়েছে কী

– ওয়েট , আমি গেস করতে পেরেছি
আপনি প্রথমে নিল আহমেদ রানা নাম দিয়ে ফেসবুকে
আমার সাথে কথা বলেছেন ! দেন আপনিই আব্বুর
কাছে বিয়ের প্রপোজাল পাঠাইছেন ! এম আই রাইট

– হাফ চামচ ভুল হইছে ! বিয়ের প্রপোজাল আমি
পাঠাই নাই ! আম্মু আমার আইডিতে আপনার ছবি
দেখে পছন্দ করেছে ! তারপরে আপনার আব্বার
কাছে প্রপোজাল পাঠাইছে !

– ইউমিন আপনার আম্মু আপনার আইডিও চালায়

– আই মিন আমাদের আম্মু আমাকেও চালায় !

– আমাদের আম্মু মানে

– আপনার আমার = আমাদের !

– আমার আম্মু কেনো হতে যাবে ?

– কারণ বিয়েটা হচ্ছে !

– আপনি কিভাবে জানলেন ?

– আমার আম্মুকে আপনি চিনেন না ! উনি আপনাকে
পছন্দ করেছেন মানে আপনাকে বিয়ে করতেই
হবে

– আমি কিন্তু রান্না পারি না !

– আমার অনেক দিনের শখ একজন রান্না না পারা
মেয়েকে বিয়ে করবো !

– কেন ?

– বিয়ের পর আম্মু বউকে রান্না শেখাবে !
ভাবতেই আনন্দ লাগতেছে

– সো সুইট ! আমি রাজী !

– আমিও
বিয়ের পর আম্মু বউকে রান্না শেখাবে !

গল্পের বিষয়:
রোমান্টিক

Share This Post

আরও গল্প

সর্বাধিক পঠিত