আজ নীল আর নীলার বিয়ে

আজ নীল আর নীলার বিয়ে

আজ নীলার বিয়ে ।। নীলা হচ্ছে নীলের গার্ল ফ্রেন্ড ।। আজ থেকে দুই বছর আগে তাদের রিলেশন হয় অদ্ভুত ভাবে।। নীল বিকেলে সাইকেল নিয়ে খেলতে যাচ্ছে।। কানে হেড ফোন দিয়ে গান শুনছে আর নিজের মত সাইকেল চালাচ্ছে ।। একটু দুরে যেতেই পানিতে নীলের গা ভিজে গেলো ।। নীলের মেজাজ গরম হয়ে গেলো ।। উপরে তাকায়ে দেখে ছাদ থেকে পানি পরছে ।। নীল নিজেকে কন্টল না করতে পেরে সোজা সিড়ি বয়ে ২য় তলায় গিয়ে কিলিং বেল চাপলো ।। ২মিনিট ধরে দাড়িয়ে আছে কিন্তু কেউ দরজা খুলছে না ।। রেগে গিয়ে দরজায় জোরে জোরে ধাক্কাতে লাগলো ।। তারপর ভিতর থেকে এক মধ্যবয়সী নারী দরজা খুললো,,,

– এই ছেলে কি হয়েছে ?? এত দরজা ধাক্কাচ্ছো কেন ??
– জ্বী ।। আমি আপনার বাসার সামনে দিয়ে যাচ্ছিলাম ঠিক তখন কে যেনো আমার গায়ে পানি ঢেলে দিছে ।।
– বলো কি !!!
– জ্বী এই জন্য আমি এখানে এসেছি ।।
– আচ্ছা আমি দেখছি তার আগে মাথাটা মুছে নাও ??
– তারপর নীলা নীলা বলে ডাকতে শুরু করলো ।।
– একটু পর একটা মেয়ে আসলো মেয়েতো না যেনো মায়া পরী।। মেয়েটাকে দেখে আমার সব রাগ মাটি হয়ে গেলো।।

– ডাকছো কেন ??
– তুই ছাদ থেকে পানি ফেলছিস এই ছেলের গায়ের উপরে।। দেখে ফেলতে পারিস না ?? যা গামছা নিয়ে আয়।।
– বাবা তুমি কিছু মনে করো না ।। নীলা আমার মেয়ে হয়তো দেখে পানি ফেলে নাই।। ভুলে তোমার গায়ে পরছে ।।
– ঠিক আছে আন্টি সমস্যা নেই।। এতক্ষনে নীলা গামছা নিয়ে আসছে ।।
– এই নাও বাবা মাথাটা মুছে না ।। না হলে ঠান্ডা লেছে যাবে ।।।
– ওকে।। আমি মাথা মুছার সময় দেখলাম নীলা দুরে দাড়িয়ে মিটমিট করে হাসছে ।।

নীল কিছু না বলে মাথাটা মুছে চলে আসে ।। মাঠে এসে আর নীলের খেলা হলো না ।। নীলার কথা খুব মনে পরছে।। কি মায়াবি চেহারা,, প্রথম দেখেই নীল নীলার প্রেমে পড়ে যায় ।। কি মায়াবি চোখ ।। মনে হয় নীলার চোখে জাদু আছে।। নীলের মাথায় নীলার কথা ঘুরপাক খাচ্ছে ।। যে ভাবেই হোক নীলার সাথে প্রেম করতেই হবে ।।
তারপর নীল সব কিছু খুলে বলে তার বন্ধুদের ।। তারপর নীল জানতে পারে নীলা ইন্টার সেকেন্ড ইয়ারে পড়ে ।।
তারপর থেকে নীল প্রতিদিন একটা বট গাছের নীচে বসে থাকতো কারন নীলা ঐ রাস্তা দিয়ে কলেজে যেতো।।
নীলা দেখতো প্রতিদিন নীল এখানে বসে থাকে আর তার দিকে তাকায়ে থাকে।। নীলা মনে মনে হাসে,, কারন ছেলেরটার গায়ে পানি ঢেলে দেওয়ার পর থেকেই এমন শুরু হয়।। নীলা ভাবে আল্লাহ ভাল জানে পানিতে কি ছিলো যার জন্য ছেলেটা আমার পিছু নিতে শুরু করছে।।

নীলা নীলের দিকে তাকায় আর মিটমিট করে হাসে।। সেই হাসিটা নীলের চোখের ঘুম কেরে নেয়।।
নীল আর থাকতে পারছে না যে ভাবেই হোক নীলাকে আজ ভালবাসর কথাটা বলতেই হবে ।।
সকাল থেকে বসে আছে নীল কিন্তু নীলার খবর নাই ।। নীলের মন আর মানছে না ।। অপেক্ষার সময় যেনো শেষ হচ্ছে না ।। অবশেষে নীলা আসলো,, নীল সব রকম প্রস্তুতি নিয়ে রেডি ,, আর নীলা এই সব দেখে মিটমিট করে হাসছে ।। নীলা কাছে আসতেই,

– নীলা একটু শোনো !!
– জ্বী বলুন কি বলবেন ??? সে দিন মাথায় পানি ঢেলে দিছি বলে আজ প্রতিশোধ নিবেন ???
– আরে না সেই রকম কিছু না
– তাহলে কি বলুন ???
– আমি কি তোমার সাথে হাটতে পারি ??
– কেনো আমার সাথে হাটবেন কেন ???
– না তোমার সাথে হাটলে ভাল লাগবে তাই আর কি ।।।
– আমার সাথে হাটলে আপনার ভাল লাগবে কেন ?? আমি তো আপনার কেউ না ।।
– না সেটা তুমি বুঝবে না ।। কেউ না হলে সাথে হাটা যায় না বুঝি ??? আমি তোমার সাথে হাটলে কোনো সমস্যা ???
– হুম সমস্যা তো আছেই ।।
– কি সমস্যা ??
– একে তো আমি আপনাকে চিনি না ।। তারপর আমার সাথে হাটা দেখলে মানুষ কি বলবে ।।
– ওও ওকে ঠিক আছে তাহলে আমি যাই।।
– আরে না এমনি বললাম আসেন আমার সাথে ।। নীলা মনে মনে ভাবছে কিরে গাধা একবারও বলল না আমি যাবো।।
– ধন্যবাদ ।।
– ধন্যবাদ দেওয়ার কি আছে ।। মনে মনে নীলা তো এটাই চাইছে !!!!
– না আপনার সাথে হাটতে দেওয়ার জন্য।।
– ওকে ওকে কোনো সমস্যা নাই ।।
– নীলা আমি তোমাকে কিছু কথা বলবো ।।
– ওকে বলেন কি বলবেন ।।
– না সে রকম কিছু না ।। কথাটা তুমি কি ভাবে বা নাও ।।
– কিভাবে নিবো সেটা পরের কথা ।। কি বলবেন আগে সেটা তো বলেন ।।। নীলা মনে মনে রাগ করে বলছে আরে গাধা তোমার এই কথাটা তো আমি শুনতেই চাই ।।। বলো না তারাতারি !!!

– না থাক আজ আর বলবো না ।।।
– মনে !!! বলেন কি বলবেন ??
– থাক আজ অন্যদিন বলবো ।।
– নীলা যে কি রাগ হচ্ছে ।। ওকে পরে কিন্তু বলবেন মনে করে ।।
– ওকে আমি যাই ।।
– ওকে জান।। গাধা নিজের মনের কথাটাও বলতে পারে না মনে মনে বলে নীলা।।।

নীল চলে আসে কিন্তু খুব খারাপ লাগছে কারন এত প্রস্তুতি নিয়ে গেলো তাও বলতে পারলো না ।।
আর অন্যদিকে নীলা ভাবছে এই গাধাটাকে দিয়ে কিচ্ছু হবে না যা করার আমারই করতে হবে ।।
সকালে নীলা কলেজে যাচ্ছে দুর থেকে দেখলো নীল বসে আছে ।। মনে মনে বলছে দাড়াও আজ তোমারই একদিন নাকি আমার একদিন ।।।

– কি ব্যাপার আজও বসে আছেন ??? আজ কে বলতেই হবে আপনাকে ।।
– ওকে নীলা ।।
– না বললে যেতে দিবো না কিন্তু ।।
– নীল মনে মনে ভাবছে কি বিপদে পড়লাম ।। আচ্ছা নীলা তুমি কোন ইয়ারে পড়ো ??
– আপনি এটা শুনার জন্য বসে থাকেন ??
– না এটা হবে কেন ।। এমনি বললাম ।।
– আমি সেকেন্ড ইয়ারে পড়ি ।। আপনি কি বলবেন সেটা আগে বলেন ।।
– না কিছু বলবো না এমনি।।
– কি বললেন ??
– না কিছু না ।। তুমি যাও আমি আজকের মত যাই ।।
– নীলা দেখছে না হবে না ।। কি আপনে যাবেন মানে?? আগে আপনার কথাটা বলেন ।।।
– না না অন্যদিন বলবো ।। আজ তাহলে আসি ।।
– এই শোনেন ??
– হা বলো ।।
– আমার নাম্বার নিয়ে যান ।। সামনা সামনি বলতে না পারলে ফোনে বলেন ।।
– ওকে ।।

নীল নাম্বার নিয়ে চলে আসে ।। মনে মনে ভাবে আজ রাতে ভালবাসর কথাটা বলে দিবে ??
রাতে নীল ফোন দেয় নীলাকে ,

– হ্যালো নীলা ??
– জ্বী ।। আপনি কে ???
– আমি নীল ।।
– ওওও আপনি ।।।
– হুম।। কি করো ??
– কিছু না।। আগে আপনার কথাটা বলেন তারপর অন্য কথা বুঝলেন ???
– নীলা আমার ভয় করছে ।। অন্য সময় বলবো ???
– না এখন বলেন ।।
– নীলা আমার ভয় করছে ।।
– ওকে তাহলে এস এম এস করেন ।।।
– ওকে করছি ।।
– এটা যেনো মিস না হয় ।।
– ওকে ।।

ফোনটা কেটে দিয়ে নীলা এস এম এস এর অপেক্ষা করে ।। একটু পর এস এম এস আসলো ।। নীলা আমি তোমাকে ভালবাসি ।। কিন্তু বলতে পারি না ।। আমি তোমাকে অনেক ভালবাসি ।। আমি তোমাকে ছাড়া থাকতে পারি না ।। সব সময় তোমার কথা মনে পরে ।।। এস এম এস টা পড়ার পর নীলা সাথে সাথে নীল কে ফোন দেয় ।।।

– হ্যালো নীল ???
– হুম বলো ।।
– ওরে গাধা এটা বলতে এত সময় লাগে ??
– মানে ??
– মানে আমি তো তোমার এই কথাটা শোনার জন্যই এত দিন অপেক্ষায় ছিলাম ।।
– তাহলে তুমি বললে না কেন ???
– ওরে গাধা মেয়েরা কখনও আগে বলে ??
– তাই তো ।।
– হয়েছে হয়েছে কাল সকালে দেখা হবে ।।।

এই বলে ফোন কেটে দেয় ।।। নীল সকালে বট গাছের নিচে বসে আছে ,, একটু পর নীলা আসলো,,, তারপর দুই জন একসাথে হাটছে,,,

– নীল শুধু কি এই ভাবেই হাটবে ???
– তো কি ??
– ওরে গাধা হাতটা ধরবে না ।। সব কি আমাকে বলে দিতে হবে ???
– ওও সরি।। তুমি থাকতে আমার কোনো চিন্তাই নাই ।।
– হয়েছে হয়েছে এখন হাতটা ধরো ।।

তারপর তারা হাটতে থাকে অজানা গন্তব্যে ।। এর দুই বছর পর নীল একটা জব পায় ।। তারপর নীলার পরিবারে প্রস্তাব দেয় ।। বাকীটা নীলা ম্যানেজ করে নেয় ।। ফলে মেনে নেয় তাদের দুই পরিবার, আজ নীল আর নীলার বিয়ে ।।। নীলা বাসরঘরে কখন থেকে একা একা বসে আছে নীল আসছে না ।। মনে মনে নীলার রাগ হচ্ছে।।

একটু পর নীল আসলো এসে নীলার হাত টা ধরে কপালে একটা চুমা দিবে তখন নীলা বলে ওরে গাধা দরজা খোলা,, নীল খুব লজ্জা পায় ।। তারপর দরজা লাগায়ে দিয়ে আসে,, আর নীলা তখন তার মাথাটা নীলের বুকে উপর রেখে হারিয়ে যেতে চায় সুখের রাজ্যে ।।

গল্পের বিষয়:
রোমান্টিক

Share This Post

আরও গল্প

সর্বাধিক পঠিত