প্রথম প্রেম

প্রথম প্রেম

এই ভুত দেখতে কেমন রে? ( লাবনি) দেখবি…? (আমি) হুমম। ভয় পাবি নাতো? উহু। আমার দিকে তাকিয়ে দেখ। দৌড় কুত্তা তুই ভূত নাকি? তুই দেখতে কত্তো কিউট। আমি দেখতে পুরাই ভূত। পাম দিছ না. আজ পর্যন্ত একটা মেয়ের সাথেও প্রেম করতে পারি নি (আমি) এজন্যই তুই ভূত? ( লাবনি) হুম। পাগল একটা। দোয়া করি তুই অতিশীঘ্রই একটা মেয়ের প্রেমে পড়বি ভালোইতো দোয়া করলি। প্রেমে পড়বো। এরপর ভালোবাসবো। এর পর মেয়েটার প্রতি পুরাই দুর্বল হয়ে যাবো।

প্রতিদিন মেয়েটাকে ফাষ্টফুডে নিয়ে যাবো।মেয়েটাও আমাকে ভালোবাসবে।  এর পর একদিন এসে বলবে”এই শোন তোমার সাথে রিলেশন রাখা আমার সম্ভব না। আমার বিয়ে ঠিক হয়ে গেছে। ব্রেক্কাপ!!ব্রেক্কাপ!!ব্রেক্কাপ!!। এর পর দেবদাসের মতো প্রথমে সিগারেট ,পরে মদ খেয়ে নিজকে বিরহের জ্বালায় তিলে তিলে নিজেকে শেষ করে দিবো। তুই পারলি এটা বলতে ও মা। এতকিছু ভেবে নিলি? আচ্ছা আমি এবার বলছি। তুই খুব সুন্দরী একটা মেয়ের প্রেমে পড়বি। যে তোকে খুব ভালোবাসবে। তোকে ফাষ্টফুডে না যেতে বলে ফুঁচকা খেতে চাইবে। এর পর একদিন তোদের বিয়ে হবে। এর পর একটা সুন্দর বাচ্চা হবে। তোর সুন্দর একটা পরিবার হবে। সুন্দর না (লাবনি) হুু। তবে এটা মনে হয় আমার জীবনে নাইরে । লাবনি এমন বিশ্বস্ত একটা মেয়ের নাম্বার দিবি শয়তান।

দাঁড়া দেখাচ্ছি মজা। (এই বলে আমার বুকে দুইটা কিল বসিয়ে দেয় লাবনি) আরে কি করছিস? থাম থাম।হার্ট ফেটে সব ভালোবাসা বের হয়ে যাবেতো! ভালোবাসা?  তোর হার্টে মেরে তোর ভালোবাসা জাগাইতেছি তোর ভালোবাসা ঘুমন্ত। একজন ঘুমন্ত মানুষ একজন ঘুমন্ত মানুষকে জাগাতে পারে না। হে হে (আমি) কি আমি ঘুমন্ত?(লাবনি) হুম। নিজে ভালোবাসছ না আবার আরেকজনের ভালোবাসা জাগাবি? হুম। তোর ভালোবাসা কে জাগাবে? আমি যাই (অনেকটা অপ্রস্তুত ভাবে কথাটা বলে চলে গেল লাবনি) পরিচয়টা দেই এখন,  আমি নীল। আর যার সাথে এতক্ষন কথা বললাম ও হল আমার একমাত্র বেস্ট ফ্রেন্ড।  আমাদের পাশের গ্রামে ওদের বাসা। ছোট্টবেলা থেকেই এক সাথে পড়ছি। বাসায় এসে লাবনির কথাটা ভাবতে থাকলাম।

সত্যি কি লাবনি আমার মনে ভালোবাসাটা জাগিয়েছে? কিন্তুু কার জন্যে? কিন্তুু অনেক আগ থেকেই ওকে ভালোবাসি আমি। কখনো সরাসরি বলার সুযোগ পাইনি। অন্যভাবে বুঝানোর চেষ্টা করেছি। মেয়েটা বুঝে নি।নাকি না বুঝার ভান ধরেছিল। মেয়েরা আসলেই অদ্ভুত। (কিছুদিন পর) আজ আমার মনটা খারাপ। কয়েকদিন লাবনিকে দেখিনি।ফোনও করেনি। লাবনিদের বাসার পাশ ধরে হাঁটছে । প্রাচীর ঘেরা লাবনিদের বাসার সামনে এসে দাঁড়ালাম। এসেই থমকে যাই। পুরো বাড়ি বিজলিবাতি দিয়ে সাঁঝানো হয়েছে।  বিয়ে হলে যেমনটি হয়। কিন্তু পুরো বাড়ি শান্ত। কাউকে দেখা যাচ্ছে না। হয়তো গায়ে হলুদ। সন্ধ্যার পর অনুষ্ঠান হবে।কিন্তু লাবনিদের বাসায় কার বিয়ে হবে? লাবনির বিয়ে নয়তো? পকেট থেকে মোবাইলটা বের করে কল করি লাবনিকে।  কল হয়েই যাচ্ছে কেউই ধরছে না। হার্টবিট আরো বেড়ে যায়। প্রায় ৫ বার কল দেওয়ার পর ওপাশে লাবনিকে পাওয়া যায়।

হ্যালো ( লাবনি) তোর বিয়ে নাকি? ( আমি হাপাতে হাপাতে বললাম ) কি আবোল তাবোল বকছিস? আমার বিয়ে হতে যাবে কেন? তাহলে?? তন্দ্রা আপুর বিয়ে। উপপপপপ। (যে হাফ ছেড়ে বাচঁলাম। মনে হচ্ছে বুক থেকে বড় পাথর নেমে গেল ) একটু নিচে আসবি? আমাদের বাসার নিচে??? হুম। আমি দাঁড়িয়ে আছি। আসার সময় একটা শাড়ি পড়ে আসিস। শাড়ি কেন? পড়ে আসবি?  না পড়লে আমি চলে যাবো। দশ মিনিট দাঁড়া আসতাছি। হাতে দশ মিনিট সময় আছে। লাবনি আসার আগে যা করার করতে হবে। লাবনিদের গেটের ভেতর উঁকি দেই। একটা গোলাপ গাছ নজরে পড়ে। খুব সাবধানে সদ্য পরিষ্ফুট একটা গোলাপ নিয়ে গেটের বাহিরে বেরিয়ে যাই। প্রায় 20 মিনিট পর লাবনি আসে। আসলে মেয়েরা সব কাজে দেরী করে। “লেডিস ফাষ্ট” কথাটা ভূল।

ফুলটা পেছনে লুকিয়ে ফেলি তাড়াতাড়ি। কিরে হঠাৎ আমাদের বাসার সামনে এলি?  বিনা দাওয়াতে বিয়ে খাওয়ার ধান্দা আছে নাকি?( লাবনি) তোর বিয়ে হলে অবশ্যই খেতাম।(আমি) আমার বিয়ে!!! (মুহূর্তেই হঠাৎ মন খারাপ হয়ে যায় ওর) কি দাওয়াত দিতি না? নাহ। ডাকলি কেন বল। একটা সুখবর দিবো। কি? সেদিন তোর ঘুষি খেয়ে আমার ভালোবাসা জেগেছে। মানে?কার জন্যে?  তোর জন্যে। মানে? আমি তোমাকে ভালোবাসি। (গোলাপটা এগিয়ে দিয়ে।) কি বললি? হুম। সত্যি। ফিরিয়ে দিস না প্লিজ অনেক দিন বলবো বলবো করে বলতে পারি নি।

তা আজ হঠাৎ? এমনিতেই এই তুই গোলাপ কই পাইলি? সত্যিকরে বল কই পাইচছ? আজ সকালে আমার নতুন গাছটায় একটা ফুল ফুটেছিলো।আর এখন আসার সময় দেখলাম নেই। ঘটনা কি? (লাবনি) ফুলটা তোর গাছের কি? আমার গাছের প্রথম ফুল দিয়ে আমাকেই প্রপোজ? (হাল্কা রেগে) আমারও কিন্তুু প্রথম ভালোবাসা।  প্লিজ একসেপ্ট কর।  (আমি) হুম। আমিই যখন তোর ভালোবাসা জাগাইছি, আর ফুলটা যেহেতু আমারই গাছের একসেপ্টতো করতেই হয়।

নয়তো আমার গাছের ফুল যাবে অন্য কারো হাতে  আর আমার যেখানে থাকার কথা সেখানটাও অন্য কেউ দখল করবে আর আমি কি তা হতে দিতে পারি (ফুলটা নিয়ে আবারো আমার বুকে কয়েকটা ঘুষি দেয় লাবনি) এই ঘুষি দিস না। ভালোবাসা আরো জেগে অন্যকারো দিকে চলে যেতে পারে (আমি) যাহ শয়তান। অন্য কারোদিকে যাবে কেন? সব ভালোবাসাই আমার জন্যে। একথা বলেই আমার বুকে মাথা রেখে দেয় লাবনি।

সমাপ্ত

গল্পের বিষয়:
রোমান্টিক

Share This Post

আরও গল্প

সর্বাধিক পঠিত