চমৎকার বুদ্ধি

চমৎকার বুদ্ধি

এক তরুণ আইনজীবী ট্রেনে করে ভ্রমন করছিলেন ৷ ভদ্রলোকের পাশের সিট খালি এবং আশে পাশেও কেউ নেই। ট্রেন মোটামুটি খালিই বলা চলে।
একটু পরে, একজন সুন্দরী মেয়ে ভদ্রলোকের পাশের সিটটাতে বসলেন ৷ Lawyer বেশ খুশি হলেন এই ভেবে যে, যাক জার্নিটা বোধহয় বোরিং হবে না!
ভদ্রমহিলা Lawyer দিকে তাকিয়ে মুচকি মুচকি হাসছিলেন । এতে Lawyer ভদ্রলোকের মনের ভেতর খুশির জোয়ার বইতে শুরু করলো। মেয়েটি Lawyer তরুনের আরও ঘনিষ্ট হয়ে বসলেন । তরুন আনন্দে আত্মহারা হয়ে কি করবেন আর কি না করবেন বুঝে ওঠার আগেই মেয়েটি ওই তরুনের কানের কাছে গিয়ে ফিসফিস করে বললেন ‘সঙ্গে যা আছে ঘড়ি, টাকা, পার্স সব বের করুন, নয়তো চিৎকার করে পুলিশ ডেকে বলব যে, আমাকে একলা পেয়ে, আপনি আমার সঙ্গে খারাপ ব্যাবহার করার চেষ্টা করছিলেন।’
lawyer তরুনটি যেন কিছুই হয়নি এইরকম ভাবে তাকালেন মেয়েটির দিকে। তারপর পকেট থেকে একটা কাগজ আর কলম বের করে ওটাতে লিখলেন, ‘আমি বোবা এবং বধির। তাই যা বলার দয়া করে এই কাগজে লিখে দিন।
মেয়েটি যা যা বলেছিলেন সেগুলো কাগজে লিখে ভদ্রলোকের হাতে দিলেন ৷
তরুন কাগজটা নিয়ে বেশ যত্ন সহকারে পকেটে রাখলেন। তারপর ইস্পাত কঠিন গলায় বললেন, ‘নিন এইবার চিৎকার করে যত ইচ্ছা পুলিশ ডাকুন।’

গল্পের বিষয়:
অন্যান্য

Share This Post

সর্বাধিক পঠিত