তন্দ্রাচ্ছন্ন

তন্দ্রাচ্ছন্ন

“এক্টিভেশন-সিন্থেসিস” একটি তত্ত্ব
বলে যে স্বপ্নের আসলে কোন অর্থই নেই।
ঘুমের সময় মস্তিষ্কে বিদ্যুৎ প্রবাহের কারণে আমাদের স্মৃতি থেকে বিভিন্ন চিন্তা এবং আবেগ উঠে আসে।
এই চিন্তা এবং আবেগগুলো খাপছাড়া। অর্থাৎ এদের মধ্যে কোন সম্পর্ক নেই।

তাহলে আমি যে অতশীকে দেখছি আজ ৪ বছর ধরে,তাহলে এটার কি কোনো কারণ নেই,এর পেছনে কোনো লজিক নেই।কিন্তু হুমায়ুন আহমেদ যে বলেছেন:
“গভীর ঘুমের স্বপ্নগুলি অন্যরকম হয়। স্বপ্ন আর স্বপ্ন থাকে না। বাস্তবের কাছাকাছি চলে যায়। হালকা ঘুমের স্বপ্নগুলি হয় হাল্কা,অস্পষ্ট কিছু লজিকবিহীন এলোমেলো ছবি। গাঢ় ঘুমের স্বপ্ন-স্পষ্ট, যুক্তিনির্ভর।”
আমি তো অতশীকে ছুঁতে পারি বলেই বলেই মনে হয়,পুরা স্বপ্ন জুড়েই অতশী।
তার লম্বা চুল,পায়ে নুপুর,কালো টিপ,কালো শাড়ি,কালো চুড়ি এই তো দেখছি ৪ বছর ধরে।প্রত্যেকদিনই তার নুপুরের শব্দে স্বপ্ন শুরু হয়,আর লম্বা চুল দেখিয়ে শেষ হয়।
ওর নামটা জানা হয়নি,তাই আমি নিজেই দিয়েছি নামটা “অতশী”।সারাদিনের অপেক্ষা শুধু তাকে দেখার,৪ বছরে কখনোই মিস হয়নি(শুধু যেবার খুব জ্বর আসছিল,সেবার অতশীকে ৮ দিন দেখিনি)।

স্বপ্ন দেখার সময় আমি বুঝতে পারি ওটা স্বপ্ন,কিন্তু অতশী কথা বলে যে,সে নাকি আসবে।এমনটা গত সপ্তাহ দুয়েক ধরে হচ্ছে,সে বার বার বলছে সে আসবে।৪ বছরে তার কোনো পরিবর্তন হয়নি,সেই প্রথম দিন আর গতরাতের মধ্যে শুধু তফাত শুধু সে আজকাল কথা বলছে।কিন্তু আমি বলতে পারি না কিছুই,আমি যেন বোবা হয়ে যায়।
স্বপ্নে দেখা কাউকে যদি ভালবাসা যায়,তাহলে আমি অতশীকে ভালোবেসে ফেলেছি।এখন যেন ঘুমের একমাত্র কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে “অতশী”।

আস্তে আস্তে তার মুখ অবয়বও দেখতে শুরু করেছি,অসম্ভব সুন্দরী(অপ্সরী),চোখটা কৃষ্ণকালোচোখ,তার উপরে ঠিক মাঝখানে কালো টিপ।

এখন আমি কথা বলতে পারি,ও শুনতে পায় তবে উত্তর দেয় না শুধু বলে সে আসবে।
(কিভাবে আসবে,কিভাবে চিনবে….এমনটায় ভাবছি এ কদিন।আমি তাকে এ কদিন বারবার বাসার ঠিকানা বলছি কিন্তু সে উত্তর দিচ্ছে না…আদৌ আমার কথা কি শুনতে পারছে?)

গতকাল বললাম,”কিভাবে আসবে?তুমি কি চিনো আমার বাসা?”
সে এ প্রথম চুপ ছিল,পুরাটা স্বপ্নে কোনো কথা বলেনি শুধু শেষে বলছিল,”আসব”।

দরজায় অনেকক্ষণ ধরে নক করছে কেউ,কিন্তু খুলতে যেতে ইচ্ছা করছে না।এতক্ষণে অন্যকেউ হলে বিরক্ত হয়ে চলে যেত।নাহ,এ মানুষটা যাচ্ছে না বরং নক করেই চলেছে।
আমি বিরক্ত হয়ে না পেরে খুললাম,কিন্তু এ কি!!! “অতশী”।
কিভাবে সম্ভব?স্বপ্নে যেমনটা দেখেছিলাম কালো লম্বা চুল,কৃষ্ণকালো চোখ,কালো শাড়ি,কালো চুড়ি সর্বশেষ কালো টুপা,আমি কয়েক মুহুর্তের জন্য তন্দ্রা খেয়ে গেলাম।এটা সম্ভব না,আমি ভুল দেখছি….

অতসী কথা বলছে,আমি বিস্ময়ের ঘোর কাটেনি তাই শুনতে পাচ্ছি না,এমনি স্পষ্ট দেখতেও পাচ্ছি না।
সে এসে আমাকে ঝাঁকা দিলো,এবার তাকে স্পষ্ট দেখতে পাচ্ছি….”রাহাত,রাহাত…কি হলো?”
কথা বললাম,”আমি রাহাত নই,অতশী…আমি অতশু”।
“আমিও অতশী নই,আমি রাহি”।

পরিশিষ্ট: অসম্ভব এ পরিণতির ব্যাখা রাহি দিয়েছিল সেদিন।সেও আমার মতোই আমাকে তার স্বপ্ন দেখত,প্রথম প্রথম সেও আমাকে শুধু স্বপ্নই ভাবত।আমি নাকি সর্বশেষ দিন আমার সাদা টি শার্টে আমার বাসার ঠিকানা লিখি,সে নাকি সেটায় দেখতে পেয়েছে কিন্তু আমার তো এমন কিছুই মনে নেই।রুমে গিয়েছিলাম সাদা টিশার্ট খুঁজতে… পাওয়ার পর দ্বিতীয়বার তন্দ্রা খেলাম।হ্যাঁ,বাসার ঠিকানা লেখা আছে।

গল্পের বিষয়:
অন্যান্য

Share This Post

সর্বাধিক পঠিত