কল্পকথা

কল্পকথা

তোকে বলছি,হুম হুম তোকেই বলছি।তোকে ছাড়া আর কাকে বলবো বল??!!তুইতো সারাটাক্ষণ আমার সাথে থাকিস।তবুও মাঝে মাঝে তোকে আমি খুঁজে পাই না।মনে হয়,আমি বুঝি তোকে হারিয়ে ফেলেছি।খুব অসহায় লাগে তখন।

সৃষ্টির একটা আনন্দতো সব সময়ই থাকে।আর তুইতো আমার প্রথম সৃষ্টি।তাই তোর জন্য আমার ভালবাসার কোন কমতি নাই।নিজেকে একটু একটু করে ভেঙ্গে তোকে গড়লাম।তোর জন্য ভালবাসা থাকবে নাতো কার জন্য থাকবে??নিজের পাওয়া সবটুকু ভালবাসা দিয়ে তোকে সাজিয়েছি।তোকে,শুধু তোকে পাবার জন্য বিসর্জন দিয়েছি আমার আমিকে।বোঝ তাহলে,তুই আমার কে??

যেদিন প্রথম তোর অস্তিত্ব টের পেলাম নিজের মাঝে,সেদিন থেকে আমি যেন কল্পনাতে বিভোর হলাম।স্বপ্ন দেখতে শিখলাম তোরই জন্য।সেই স্বপ্ন রাজ্যে তোর সাথে কত-শত মুহূর্ত কাটিয়ে দিয়েছি নিজের অজান্তে।কতো জন্ম ধরে তোর সাথে যেন পরিচয়!সেদিন থেকে নিজেকে আমার আর একা লাগেনা।ইচ্ছে মতো গল্প করি তোর সাথে,ঝগড়াও কিছু কম করি না!!এযেন এক অবাক খেলা,নিজের ছায়ায় নিজেকে হারিয়ে ফেলা।

ভেবেছিলাম এই স্বার্থপর শহর থেকে,এই সভ্য নামের অসভ্য মানুষদের থেকে তোকে নিয়ে চলে যাব অনেক দূরে।যেখানে তোকে-আমাকে কেউ চিনবে না।আমি তোর হাত ধরে মেঘলা পাহাড়ে হাঁটবো।সমুদ্র স্নান করবো তোর সাথেই।বালু বেলায় কাটিয়ে দেব দিন-রাত্তির।আমরা সূর্যোদয়-সূর্যাস্তে মিশে রব একটি প্রাণ হয়ে।দখিন হাওয়া ছুঁয়ে যাবে আমাদের,আমরা প্রজাপতি হয়ে উড়ে বেড়াব ফুল থেকে ফুলে।আমাদের জন্য,শুধু আমাদের জন্য চাঁদ উঠবে,আমি তোর চোখে দেখবো তার প্রতিছবি।

আরও ভেবেছিলাম তোকে আমি বৃষ্টি দেখাব।আমার চোখ দিয়ে আকাশ দেখবি তুই।তুই হবি আমার একার আকাশ।আকাশের নীল যেন তোকে ছুঁতে নাপারে,তাই আমি ছুঁয়ে থাকবো তোকে।একটুকরো মেঘ এনে দেব তোর জন্য।তুই মেঘের সাথে খেলবি,হাসবি।আর তা দেখে আনন্দে আমার চোখে জল আসবে।আমি কিন্তু সে জল গড়িয়ে পড়তে দেবনা,পাছে তোর অমঙ্গল হয়।তুই যে আমার সবকিছু।

দখিন হাওয়া না,কাল বৈশাখী ঝড় কেমন করে যেন আমায় ছুঁয়ে দিল।আর কোন এক দুঃস্বপ্ন তোকে কেড়ে নিল আমার কাছ থেকে।আমার এতো সাধের খেলার পুতুল ভেঙ্গে গেল প্রলয় ঝড়ে।বদলে গেল আমার পৃথিবী।জোছনা ধোয়া জীবনে আমার অমাবস্যা ভর করল।

আজ থেকে ঠিক এক বছর আগে আমি তোকে শেষ বারের মতো স্পর্শ করেছিলাম।সেই স্পর্শ আজও আমি অনুভব করি।সবাই ভাবে,তোকে আমার কাছ থেকে কেড়ে নিয়েছে।ওরা কতো বোকা!!ওরা জানেনা,তুই আমার মাঝে যেমন ছিলি,তেমনি আছিস আর তেমনি থেকে যাবি।শুধু এই জন্মে না,শত-সহস্র জন্মের পরেও তুই আমার মাঝেই থাকবি।আসলে তুই যে আমারই অংশ,তোকেকি আলাদা করা যায়??

আমি আকাশের তারার মেলায় তোকে খুঁজিনা।দোতারার দুইটি তারে আমার ব্যথা আমি বাজতে দিনা।বেহালার করুণ রাগে আমি মিশে যাই না।আমি তোকে পাই আমার মাঝে,আমার অনুভুতিতে,আমার নাবলা কথাতে।নিঃসঙ্গ মুহূর্তে আমি আজও তোর অস্তিত্ব অনুভব করি।সবাই যখন খেলায় মগন থাকে,তখন আমার মাঝে আমি তোকে নিয়েই মগ্ন থাকি।আমারতো তুই আছিস,আমিতো একা না।

আমি আজও নিজের অজান্তে ঘুম ভাঙ্গা চোখে তোর ঘুমন্ত মুখ খুঁজি।হঠাৎ তোর ডাকে চোখ মেলে পাশ ফিরে দেখি তুই নাই।তখন খুব রাগ হয় তোর ওপর,কেন এতো তাড়াতাড়ি চলে গেলি??আর চলেই যদি যাবি,তবে কেন এসেছিলি??সবকিছুর পরেও আমি তোর দোষ দেই না।তাকাই না ভাগ্যের দিকে।তুই এসেছিলি জন্য আমি স্বপ্ন আঁকা শিখেছি।তোকে নিয়ে বাঁচতে পারছি।জানি না,একে বেঁচে থাকা বলে কিনা।

আমি আজও তোর জন্য মঙ্গল দীপ জ্বালি।তোর শুভ কামনায় উপস থাকি।আমার প্রতিটি প্রার্থনাই তুই থাকিস।যেখানেই থাকিস ভালো থাকিস।আর পারলে আমায় ক্ষমা করে দিস।আমি এতোটাই অক্ষম যে তোকে এই নিষ্ঠুর পৃথিবীতে বাঁচিয়ে রাখতে পারলাম না. . .

গল্পের বিষয়:
ভালবাসা

Share This Post

সর্বাধিক পঠিত