তোমায় অনেক ভালবাসি

তোমায় অনেক ভালবাসি

৬বছরের সম্পক,,,হঠাৎ মেয়ে টি ছেলেটিকে এরিয়ে চলা শুরু করে,,ছেলেটি ফোন দিলে মেয়েটি খুব কম receive করত,,আগের মত কথা বলতো না,,,দেখা করার কথা বললেই নানা রকমের অজুহাত দেখাত,,,ছেলেটি মেয়েটির এমন ব্যবহারে খুব কস্ত পেত,,,ছেলেটি অনেক বুঝার try করল কিন্তু কিছুই বুঝতে পারছে না,,,ছেলেটির কোন ভুলের কারনে এমন করছে মেয়েটি,, একদিন ছেলেটি অনেক জোর করল দেখা করার জন্য মেয়ে টি আবারও অজুহাত দেয়া শুরু করল কিন্তু ছেলেটি এবার তাদের ভালবাসার দুহাই দিল আর বলল সে যেন দেখা করার জন্য আসে তারা যেখানে ৬বছর ধরে দেখা করে আসছে,,,,মেয়েটি দেখা ককরার জন্য আসে,,,মেয়েটি এসে দেখে ছেলেটি অপেক্ষা করছে তার জন্য,,,

মেয়ে–কেন দেখা করার জন্য ডাকছো তারাতারি বল আমার কাছে সময় নেই,,,?

ছেলে–কি হয়েছে তোমার,,,ঠিক মত কথা বল না কেন আমার সাথে,,কি করেছি আমি?আমার কি কোথাও কোনো ভুল হয়েছে pls বলো আমায়? আমার সাথে কেন এমন করছ তুমি?

মেয়ে–আমার কিছুই হয় নি..তোমার সাথে কথা বলতে এখন আর আমার ভাল লাগে না তাই কথা বলি না আর দেখা করারও প্রয়োজন মনে করি না,,,

ছেলে– কথা বলতে ভাল লাগে না মানে!!!!আমরা দুজন দুজনকে ভালবাসি,,আর আমরা দুজন সম্পর্কের মধ্যে আছি,,,।।।তাহলে এমন কথা কেন বলছ তুমি।।।(কান্না কান্না গলায়)

মেয়ে–আমি তোমাকে ভালবাসি না,,,আর তোমার সাথে সম্পর্ক করা টা আমার জিবনের একটা বড় ভুল,,,?আমি তোমার সাথে আর সম্পক রাখতে চাইনা।।।

এ কথা শুনার পড় ছেলে মেয়েটির গালে একটা থাপ্পড় মারলো,,,মেয়েটি বলল তুমি আমার গালে থাপ্পড় মারতে পারলে।।।ছেলেটি বলল হা পারলাম,,আগে যদি জানতাম তাহলে তোর মত বাজে মেয়ের গালে সেদিন এ এই থাপ্পড় টা মারতাম যেদিন তুই আমায় ভালবাসা শিখিয়েছিলি,,ভাল যদি নাই বাসিস তাহলে এত দিন এত অভিনয় করা কি দরকার ছিল আর আমার ভালবাসা নিয়ে খেলা করার অধিকার কে দিয়েছে তোকে,,,তুই তোর জীবন নিয়ে সুখে থাক ভাল থাক,,আমার সাথে আর কোন দিন কথা বলার আর দেখা করার কোনো রকম try করবি না,,,এ কথা গুলো বলে ছেলেটি কান্না করতে করতে ওখান থেকে চলে গেল,,,মেয়েটি ওখানেই দারিয়ে কান্না করল।।।। কিছুদিন পর মেয়েটিকে একটা অচেনা ছেলের সাথে রিস্কায় যেতে দেখল ছেলেটি।।।রিস্কার সামনে গিয়ে রিস্কাটি দার করালো,,,

ছেলে–কি হয় এ তোমার bf?

মেয়ে–হু।।

ছেলে–ভাই সাবধান ভেবে চিনতে কাজ করবেন,,,,,এখন কার কিছু মেয়েরা আপনার আর আমার মত ছেলেদের মন নিয়ে খেলা করতে খুব ভালবাসে,,,

মেয়ে টি মাথা নিচু করে আছে কিছু বলছে না,,,ছেলেটি কিজানি একটা বলতে চাইল কিন্তু মেয়েটি বলতে দিল না,,,,আর ছেলেটিকে বলল তোমার সব কথা কি শেষ!ছেলেটি বলল হা।।।ওরা দুজন চলে গেল,,,ছেলেটি ওদের দেখতেই থাকল।।। সেদিনের পর থেকে মেয়েটিকে বেশ কিছু দিন ধরে ছেলেটির চোখে পরে না,,,হঠাৎ একদিন সেই ছেলেটির সাথে দেখা হল,,,ছেলেটিকে দেখে চিনতে পেল ওই ছেলেটি,,,

মেয়েটির bf– কেমন আছে তোমার gf..?

ছেলে–ও আমার gf না,,আমি ওর খালাত ভাই,,

মেয়েটিরbf–mittha boliyi na.. আমি জানি,,

ছেলেটি–তুমি কিছুই জান না,,,।।ও তোমার ভালর জন্য সব কিছু লুকিয়েছে।।।

মেয়েটির bf–লুকিয়েছে মানে!!কি লুকিয়েছে?

ছেলেটি–ও কিছুদিন আগে জানতে পারে ওর blood ক্যান্সার হয়েছে।।তাই ও তোমার জীবন থেকে চলে গিয়েছে,,,ও তোমায় অনেক ভালবাসে তাই তোমায় কস্ত দিতে চায় নি,,,আমি সেদিন তোমায় সব বলে দিতে চেয়েছিলাম কিন্তু ও বলতে দেয় নি,,,

মেয়েটির bf– তুমি মজাক করছো আমার সাথে তাই না(কান্না কান্না গলায়)

ছেলে–না এতাই সত্যি।।

ছেলেটি কিছুতেই মানতে পারছে না,,, কান্না করতে করতে বলল ও এখন কোথায়,,,ওই ছেলেটি মাথা নিচু করে আছে কিছু বলছে না,,,ছেলেটি বলল বল না কেন ও এখন কথায়,,,,,??? ওই ছেলেটিও কান্না করতে করতে বলল ও গত ৪দিন আগে না ফেরার দেশে চলে গেছে,,,, ছেলেটি একথা শুনে মাটিতে বসে পরে আর খুব জোরে কান্না করতে থাকে,,,,ওই ছেলেটি সান্তনা দেয়।।।ওই ছেলেটিকে বলল ও যেখানে সারা জিবনের জন্য সুয়ে আছে সেখানে আমায় নিয়ে যাবে,,,।। ছেলেটি ওকে নিয়ে যায় মেয়েটির কবরের কাছে।।।

ছেলেটি কবরের পাশে বসে কান্না করছে,,, আর বলছে তুমি আমায় ছেরে চলে জেতে পার না,,, আমাকে মাফ করে দাও।।আমি তোমায় ভুল বুঝেছিলাম।।।আমাকে এত বড় শাস্তি দিলে তু মি।।। আমাকে শেষ বারের মত দেখতে দিলে না তুমি,,, আমিও এজিবন রাখব না।।।আমি তোমাকে ছারা বাসবো না।।।আমি না জেনে কত খারাপ কথা বলেছি তোমায়।। কত খারাপ ভেবেসি।।।।

ওই ছেলেটি ছেলেটিকে ওখান থেকে নিয়ে গেল।।।।সারা রাস্তায় ছেলেতি কান্না করতে করতে আসল বাসায়।।।।। বাসায় এসেই ছেলেটি ছাদের উপরে যায় আর আকাশের দিকে তাকিয়ে বলল তোমাকে সারা আমি সুখে থাকতে পারব না।।।আর অন্ন কাউকে আমার জিবনে আনতেও পারব না এজিবন রেখে কি লাভ বল আমি তোমার কাছে জেতে চাই।।আর এখন আমি তোমার কাছেই যাব এই কথা বলে ছেলেটি ছাদের উপর থেকে লাফ দিয়ে জীবন দিয়ে দেয়,,,,।।।

গল্পের বিষয়:
ভালবাসা

Share This Post

সর্বাধিক পঠিত