সুবাদ এর ইন্দ্রজালের সংস্পর্শ

সুবাদ এর ইন্দ্রজালের সংস্পর্শ

জীবনটা সম্পর্কের মায়া জালে আবদ্ধ।এই মায়া হলো জীবনের অক্সিজেন ও বেঁচে থাকার টনিক।এই মায়া জালই যেকোন সম্পর্ককে বাঁচিয়ে রাখে।অার নিঃসন্দেহে যোগাযোগ সম্পর্কের মায়াজাল বুনে সম্প্রসারিত করে।
কারও সাথে প্রতিনিয়ত যোগাযোগ যেমন সম্পর্ক বৃদ্ধি করে ঠিক তেমনি যোগাযোগের মাত্রাটা কোন কারণবশত যতো কমে যায় মাঝখানের দেয়ালটা তত বৃদ্ধি পায়,একসময় দেখা যায় দীর্ঘদিন ধরে কোন যোগাযোগ না থাকার ফলে মাঝখানে পাহাড় সম দূরত্ব তৈরি হয়।এরপর ভবিষ্যতে কখনও যোগাযোগ হলেও যা কথা হয় তার বেশির ভাগই হয় ফরমালিটি যেমন-কেমন অাছো?

-ভালো,অাপনি?

এভাবে কিছু কথোপকথন,তারপর অাবার হয়তো একে অপরের থেকে সময় স্রোতে হারিয়ে যায়।কিন্তু অাগের অবস্হায় চাইলেও ফিরে যাওয়াটা সর্বদা হয়ে উঠে না। তবে ফেলে রেখে যায় মায়ার মোহ।যেটা কারণে অকারণে হাজারো ব্যাস্ততার মাঝে হারিয়ে যাওয়া প্রিয় মুখটি মনে পড়ে খারাপ লাগে।সত্যি বলতে মায়া জিনিসটা অদ্ভুত ভয়ঙ্কর।পরিণতি অনুকূলে না হলে অসম্ভব পীড়াদায়ক হয়ে থাকে।

প্রেমের মৃত্যু হলে সেটা যেরকম করে নতুন কোন প্রণয়নীকে ঘিরে জীবনে পুণরায় ফিরে অাসতে পারে। কিন্তু মায়ার মৃত্যু হলে সেটা প্রেমের মতো করে নতুন মায়ার জন্ম দিতে পারে না।কেননা প্রেমের সম্পর্কের থেকেও মায়ার মোহ ভোলাটা কঠিন। তাছাড়া প্রেমের সম্পর্কটা সংকীর্ণ কিন্তু মায়া সম্পর্কটা বিস্তৃত সুবিশাল।প্রেম হয় প্রেমিকার সাথে কিন্তু মায়ার সম্পর্ক মা-বাবা,ভাই-বোন,অাত্নীয়স্বজন,বন্ধুবান্ধব ও প্রেমিকাসহ যেকোন গড়ে ওঠা সুসম্পর্ক অাপন কাছের মানুষের সাথে।

অাবার মায়ার থেকেও বিষম ভয়ঙ্কর ঝাঁজালো হলো প্রিয় মানুষের উপর অাগ্রহ ও ইচ্ছে হারিয়ে ফেলা।যে কারণে যোগাযোগ এর মাত্রা কমে যায়।অাবার আগ্রহ এবং যোগাযোগ রক্ষা এমন এক জিনিস সেটাকে নিজের সীমার চেয়ে বেশী গুরুত্ব দিলে তা মানুষকে অনেক সস্তা বানিয়ে ফেলে।অামরা অামাদের জীবনে সত্যিকারের অাপনজনদের যারা কিনা অামাদের নিঃস্বার্থ ভালোবাসে ও ভালোচায় দেখা যায় তাঁদেরকেই অামরা কোন একসময় দাম দেই না অবহেলা করি।

কিন্তু নির্মম ও বাস্তব সত্য হলো,”পরিপূর্ণ পৃথিবীতে শূন্যের কোন স্হান নেই।” কারও জন্যে কারও জীবন থেমে থাকে না,জীবন তো চলেই যায়..! অামাদের জীবনটা অাসলে অনেকটা রেলগাড়ীর মতো যেখানে এক এক স্টেশনে নতুন মানুষের অানাগোনা হয় অাবার পরের স্টেশনে তাঁর থেকে অনেকে নেমে যায়।খুব কম মানুষই দীর্ঘ পথের শেষ স্টেশন পর্যন্ত পাশে থাকে।জীবন পথের এক স্টেশন থেকে অন্য স্টেশন অব্দি অামাদের অনেক সময় নতুন কারও প্রতি তৈরি হয় মায়ার মোহ যখন তাঁরা নেমে যায় তখন খারাপ লাগে কিন্তু পরক্ষণেই পাশে অাবার নতুন কেউ এসে বসলে এবং তাঁর সাথে নতুন করে ভাব তৈরি হলে অামরা ধীরে ধীরে পূর্বের জনকে ভুলে যাই।এটাই হলো নির্মম বাস্তবতা তাই অামাদের উচিৎ যে স্বেচ্ছায় চলে যেতে চায় তাঁকে বাঁধা না দেওয়া এবং তাঁর মায়ায় পড়ে না থাকা।”যদি তোর ডাক শুনে কেউ না অাসে তবে একলা চলো রে” রবিঠাকুরের এ গানের মতোই মায়ার মোহ ত্যাগ করে নিজেকে সর্বাধিক প্রায়োরিটি দিয়ে,সত্যিকারের অাপনজনদের নিয়ে,নিজের লক্ষ্য ও স্বপ্ন পূরনের দিকে এগিয়ে যাওয়া।

একইভাবে ছোটখাটো কারণ নিয়ে এবং মনের ভিতরে ইগো পুষে,ছোটখাটো ভুল বোঝাবুঝির কারনে প্রিয় মানুষদের সাথে যোগাযোগ এর মাত্রা না কমানো এতে করে যার সাথে এমনটা করা হচ্ছে সে একে কষ্ট পায়,দুয়ে এক সময় অাপনিও তাঁর মন থেকে উঠে যাবেন।দেখা যায় অাপনার প্রতি তাঁরও অাগ্রহ কমে যাবে এবং অাপনার স্হানটা অন্য কেউ দখল করে নিবে।তখন দেখা যাবে অাপনার করা ছোট ভুলটির কারনে প্রিয় মানুষকে হারিয়ে অাপনিও কোন একসময় কষ্ট পেতে পারেন।তাই সাবধান বেঁচে থাকুক সত্যিকারের পবিত্র সম্পর্ক গুলো।

গল্পের বিষয়:
ভালবাসা

Share This Post

আরও গল্প

সর্বাধিক পঠিত