একটি সুন্দর বিকেল

একটি সুন্দর বিকেল

রিমি প্রায় দেড় ঘন্টা যাবৎ লেকের পাড় বসে রয়েছে, অার মরিচের মতো রাগে জ্বলতেছে,

শুভ্র কোন সময় ফোন করে বলেছে খুব সুন্দর করে সেজেঁ অাসতে,দেখা করবে ওরা,রিমি খুব তাড়াতাড়ি করে

সময়মতো চলে অাসলো,সে জানে শুভ্র দেরি অাসবে। অাজকে ওর মনটা অনেক ভালো,অনেকদিনপর ওদের

দেখা হবে তাই সে সময়মতোই ওদের পছন্দের জায়গাটাই চলে অাসে,কিন্তু অার কত অপেক্ষা করা যাই,

রিমি মন খারাপ করে বসে রয়েছে অার একা একাই কথা বলতেছে ওর কোনো চিন্তা নেই একা একটা মেয়ে কতক্ষণ

ওর জন্য অপেক্ষা করছে,অার ওনার এখনো অাসার সময় হলো না।।
ΠΠΠ→→→
রিমি অার শুভ্র একই ভার্সিটিতে পড়াশুনা করে,ওদের বন্ধুত্ব হয়েছিলো স্কুলে অষ্টম শ্রেণীতে পড়ার সময়,

কোনো এক ঘটনা ক্রমে রিমিরা চলে অাসে,তারপর ওদের অার দেখা হয়নি অনেক বছর,তারপর ওদের

অাবার বন্ধুত্ব হয় ভার্সিটিতে,শুভ্র ওকে প্রথমদিন ভার্সিটিতে দেখেই চিনতে পেরেছিলো,কিন্তু রিমি প্রথমে

চিনতে পারি নি পরে অবশ্যই ঠিকই চিনতে পেরেছিলো।।
ΠΠ→→→
রিমি এবার শুভ্রকে একটা ফোন দিলো,রিসিভ না করে শুভ্র ফোনটা কেটে দিচ্ছে,হয়তো সে কাছাকাছি এসে গেছে,

হঠাং সামনে তাকিয়ে দেখে শুভ্র অাসতেছে,ওর দেওয়া টি-শার্টটা পরে এসেছে, হাতে চকলেট অার একটা ফুল।

রিমি মনে মনে বলতেছে অাজ অাসুক ওর একদিন কি অামার একদিন,অাজকে ওর সাথে ব্রেক-অাপ,কথাই বলবো না,

ওহহ-অামি না একটা পাগলী কি যে বলি, অাজ পর্যন্ত হাজার বার বলেছি তোমার সাথে অামার ব্রেক-অাপ তুমি

অামাকে অার কখনো ফোন দিবা না অার ভূলেও যোগাযোগের চেষ্টা করবা না,যদি করেছ তোমার খবর অাছে,

তখনই শুভ্র একটা মুচকি হাসি হেসেঁ অামার কানে ধরে বলে সরি অার ঝগড়া করবো না,তারপর অামি ও ওর

কানে ধরে সরি বলে ফেলি,অামাদের মধ্যে ব্রেক-অাপ অসম্ভব অন্য কিছু করতে হবে।
যাইহোক সব ভালোবাসার মাঝেই মিষ্টি ঝগড়া থাকে।।
(শুভ্র) আমি দূর থেকে লক্ষ্য করলাম রিমি নীল শাড়ি পরে বসে রয়েছে অার অামার অাসার অপেক্ষা করছে।

আজ ও নীল শাড়ি পরেছে। কপালে নীল টিপ। অদ্ভুত এক ভাললাগা..! (শুভ্র) আমি দূর থেকে যত দেখি ততই যেন মুগ্ধ হই।

আর কোথায় যেন হারিয়ে যাই..!শুভ্র ভয়ে ভয়ে রিমির সামনে এগুতে লাগলো,ওকে দেখে-
→রিমি_অাপনার সময় হয়েছে অাসার, অাজকে না অাসলে ও পারতেন.!!
→শুভ্র_সরি.! (ওর কানে ধরে)
→রিমি_অার কত সরি বলবে..!
→শুভ্র_অামার কথাটা একটু শুনো,অাসলে অাসার সময়, রাস্তায় একটা বৃদ্ধ লোক এক্সিডেন্ট করে রাস্তার পাশে

পরে রয়েছে কিন্তু সবাই দেখছে কিন্তু কেউ সাহায্য করছে না.! তখন অামি ওনাকে হসপিটালে এডমিট করাই,

তারপর ওনার রক্তের প্রয়োজন হয় অার অামার সাথে রক্তের গ্রুপ সেইম তাই ওনার রক্ত দিয়ে অাসতে একটু

দেরি হয়ে গেছে অাচ্ছা অার হবে না সরি.!!
→রিমি_ সরি.! অামি বুঝতে পারি নাই,তুমি খুব ভালো একটা কাজ করেছ.!
→শুভ্র_হুম.অাচ্ছা এই নেও তোমার চকোলেটস্, অার ফুলটা তোমার ওন্য
→রিমি_Thank you.!
→শুভ্র_এখন কি অাপনার রাগ কমেছে.!!
→রিমি_জ্বী,অাপনি এখন বসুন.! ( মুচকি হেসেঁ)
→শুভ্র _তুমি অনেক্ষণ যাবৎ অামার জন্য অপেক্ষা করছো তাই না.??
→রিমি_অামি তোমার জন্য সব সময়ই অপেক্ষা করি,অার তুমি দেরি করে অাসো.!
→শুভ্র_অাচ্ছা,অার হবে না
→রিমি_হয়ছে,তো এখন কি এখানেই বাকিটা সময় শেষ করবে। এতো সুন্দর বিকালটা শেষ হতে যাচ্ছে.!!
→শুভ্র _অারে নাহ.! চলো একটু হাটিঁ
→রিমি_হুম.!
→শুভ্র_একটা কথা বলি.!
→রিমি_শুধু একটা কথা বলবা.!
→শুভ্র_অাজকে তোমাকে অন্যদিনের তুলনাই খুব সুন্দর লাগতেছে.!
→রিমি_ও অাচ্ছা.!জানি.! ( হি.!হি.!হি.!)
→শুভ্র_হুম’
→শুভ্র_ ওর হাতটি খুব শক্ত করে ধরেছি.! বুকের ভেতর অদ্ভুত এক ভাললাগা অনুভব করছি,অামি যেন

কিছুক্ষণের জন্য কোথাও হারিয়ে গেলাম,যেন কোনোদিনই ওর হাতটা ছাড়বোনা.!
→রিমি_একটা কথা বলি.??
→শুভ্র_হ্যাঁ বলো.!!
→রিমি_অামি তোমাকে খুব ভালোবাসি,অামাকে ছেড়ে কোনোদিন হারিয়ে যাবে না তো,এই পাগলীর হাতটা

কোনোদিন ছেড়ে দিও না (কান্না ভেজা কন্ঠ)
→শুভ্র_অামি ও তোমাকে খুব ভালোবাসি.!! ( ও এমনই অামার উপর একদম রাগ করতে পারে নাহ,অার অামি

ওকে কত কষ্ট দেই,সত্যিই অামি অাজকে অনেক দেরি করে এসেছি, নিজেই ঝগড়া করে অাবার নিজেই অাবার

কান্না করে অামাকে জড়িয়ে ধরে,অামি খুব ভাগ্যবান ওর মতো কাউকে জীবনে পেয়ে)
→রিমি_ওকে খুব শক্ত করে জড়িয়ে ধরলো,তোমাকে অামি কোনোদিন হারাতে চাই না.!
→শুভ্র_ওর কান্না মুছে দিয়ে,অামি তোমাকে হারাতে দিলে তো,অাচ্ছা চলো ফুসকা খাই
→রিমি_হুম,চলো.!!
ওরা যখনই দেখা করে,এই লেকের পাড় অাসে অার এখানে একটা মামা ফুসকা ব্রিক্রি করে, ওনার ফুসকা খেতে ওদের ভালো লাগে.!
ওরা ফুসকা খেয়ে,সন্ধ্যায় বাসায় ফিরলো,হাজারো ব্যস্ততার মধ্যে ভালোবাসার মানুষটিকে একটু সময় দিয়ে দেখোন

অাপনার প্রতি তার ভালোবাসা বেড়ে যাবে,সময়টা খুব ভালো কাটবে .

গল্পের বিষয়:
ভালবাসা

Share This Post

সর্বাধিক পঠিত