বৃষ্টি ভেজা

বৃষ্টি ভেজা

ঘুমাবে না?
>>কাজটা শেষ করেই ঘুমাবো।
>>কাল তো ছুটিই আছে।এখন ঘুমিয়ে পড়ো কাল শেষ কইরো।
>>আজ শেষ করতে পারলে কাল তোমায় নিয়ে কোথাও বের হতে পারবো তাই এখুনি করছি।
>>লাগবে না। তুমি এখন ঘুমাবা। আমি বলছি তুমি ঘুমাবা তো ঘুমাবা।
>>আচ্ছা।

ল্যাপটপটা রেখে দিলাম ছোট টেবিলের উপরে। রাত তখন ৩ টা বাজে। তাই পায়েল খুব জোড় করেছিলো ঘুমানোর জন্য। ওহহহ হ্যা আমার বউপাখিটির নাম হচ্ছে পায়েল। পায়েল আর আমার বিবাহিতজীবনের পর থেকে ভালবাসাটা যেনো আরো কয়েকগুন বেড়েই গেছে। আমার জন্য পায়েল ও রাত জেগে থাকতো যতক্ষন না আমি ঘুমাবো।

আমার ডান হাতের উপর তার মাথা রেখে জড়িয়ে ধরে ঘুমিয়ে পড়লো। আমি প্রতিটা রাতই চাই পায়েলএভাবে জড়িয়ে ধরুক আমাকে।একেবারে নিস্পাপবাবুর মতো ঘুমাচ্ছে। আমি তার নিশ্বাসের শব্দশুনছিলাম। একটু পর আলতো করে একটু শক্ত করে নিজের বুকের মাঝে লুকিয়ে রেখে আমি ঘুমিয়ে পড়লাম। ঐ দিন সারা রাত খুব বৃষ্টি হওয়ার ফলে ঘুমটাও ভালহলো। আমি বিদ্যুৎ চমকানো টা খুব বেশিই ভয়পেতাম। আমার চেয়ে বেশি ভয় পেতো পায়েল।যখনই বিদ্যুৎ চমকায় সাথে সাথে আমাকে জড়িয়ে ধরে।সে জড়িয়ে না ধরলে আমি নিজেইজড়িয়ে ধরতাম।তবে বৃষ্টিতে বিজতে অনেক পছন্দ করতো সে।আমার ভাল লাগতো কিন্তু ভয়ে বিজতাম না।

>>এই উঠো,উঠো না, এই
>>কি হয়েছে
>>উঠো এখন। ১০ টা বেজে গেছে দেখছো।
>>হুমম উঠছি।
>>উঠছি না এখনই উঠবে। উঠো বলছি
>>হুমম বলো এখন।
>>চলো না একটু বৃষ্টিতে বিজি।
>>কি বলো এত সকালে বৃষ্টিতে বিজলে ঠান্ডা লেগে যাবে তো।
>>না না লাগবে না।চলো না বিজি।
>>উঁহু আমি যাবো না।
>>যাবে না?
>>না যাবো না।
>>আচ্ছা তুমি তাহলে ঘুমাও বেশি করে।

বলেই রুম থেকে চলে গেলো। কিছুদিন আগেই সুস্থ হয়েছে। এখন যদি আবার বৃষ্টিতে বিজে তাহলে আবার অসুস্থ হয়ে পরবে।এর কারনেই মানা করা।কিন্তু তার কথা শুনতে হবেই।যখন যেটা বলবে সেটা আমার শুনতে হবেই।না শুনলে মুখ ফুলিয়ে বসে থাকবে।যেটা আমি একদমই পছন্দ করি না। বিছানা থেকে উঠে গেলাম বউকে খুঁজতে। অন্য রুমে গেলাম কিন্তু নেই বেলকনিতে গিয়ে দেখি দাড়িয়ে আছে। বাহিরে বৃষ্টি পরছে খুব অজরেএইদিকে আমার বউটা তাকিয়ে তাকিয়ে দেখছে। আমি যেয়ে তার পাশে যেয়ে দাঁড়ালাম। কিন্তু আমাকে দেখে সে ঐ খান থেকে চলে আসতে চাইলো। আমি তার হাতটি ধরে ফেলি যাতে সে না যেতে পারে।

>>হাত ছাড়ো। এখানে আসছো কেনো? যাও ঘুমাও তুমি।
>>না ছাড়বো না। ঘুমাবোও না।
>>কেনো?
>>এমনি।
>>হুহহহহ
>>এই শোনো
>>কি
>>বৃষ্টিতে বিজবে?
>>নাহ
>>চলোনা যাই।
>>উম্মাহ। তারা-তারি চলো।কমে যাবে পরে।

পরে ছাদে গেলাম আমি আর পায়েল বিজি বৃষ্টিতে। আমি তো ঠান্ডায় কাপতে ছিলাম। হঠাৎ বিদ্যুৎ চমকালো আর পায়েল সাথে সাথে আমাকে জড়িয়ে ধরলো।তখন কেনো জানি ভয় পেলাম না আমি।আমার তখন ভালই লাগতেছিলো। আর কিছুক্ষন বিজে নিলাম পরে এসে পরলাম। এখন পায়েল অনেক খুশি।আর তার খুশি মাখা মুখটা দেখলে আমি নিজেও অনেক খুশি হই।বড্ড ভালবাসি আমার বউটিকে। অনেক বেশি সেও আমাকে বাসে। সেদিন আর বের হতে পারিনি বাসা থেকে। সারা-দিনই বৃষ্টি পরেছে। তবে সেদিন আমি আর আমার বউটা অনেক বেশি খুশি ছিলাম।কারনটা বলা যাবে না।

>>এই নাস্তা করতে আসো
>>কয়টা বাজে এখন?
>>১২:৩০।
>>এখন কি কেউ সকালের নাস্তা করে?
>>তোমার জন্যই তো দেড়ি হয়েছে। আরো বেশি করে রাত জাগো।
>>তুমি ঘুমিয়ে পরতে। তাহলেই তো হতো
>>কখনো তোমার আগে আমি ঘুমিয়েছি??
>>গতকালই তো ঘুমিয়েছো।
>>জ্বী না ঘুমাইনি।আমি এমনি চোখ বুঝে ছিলাম।
>>ওহহহহহ আচ্ছা। তাই নাকি?
>>জ্বী হা। যখন আমাকে শক্ত করে জড়িয়ে ধরে ছিলা।তখন আমার অনেক হাসি পেয়েছিলো। কিন্তু হাসতে পারিনি।
>>আচ্ছা।তুমি এত স্টুপিড কেনো?
>>কিহ আমি স্টুপিড?? যাও তোমার সাথে কথা নেই।
>>আহা কে বলেছে তুমি স্টুপিড? যে বলেছে
সেই অনেক বড় স্টুপিড।
>>হুমম ঠিক বলেছো।
>>কিহহহহহ???

পরে সকালের নাস্তা করি ১ টা বাজে।আর দুপুরের খাবার খাই ৫ টায়।পায়েল আমাকে খাইয়ে দেয়।সবসময়ই তার নিজ হাতে খায়িয়ে দিতো আমাকে।আমি মাঝে মাঝে তার আঙুলে কামর বসিয়ে দিতাম।সেটা ছিলো এক প্রকারের ভালবাসা।যেটা পায়েল খুব ভাল করেই বুঝতে পারতো। এই ফাকে অফিসের কাজটা শেষ করে ফেলি। রাতে কিছুটা পরিষ্কার হলো আকাশ।অনেকদিন হলো বউকে নিয়ে কোথাও যেতে পারছিনা। অফিসের কাজের চাপে বড্ড ভালবাসা হীন হয়ে যাচ্ছে আমার বউটা। সময় দিতে পারছিলাম না বেশি। কিন্তু পায়েল সেটা বুঝতে পারতো তাই কিছু বলতো না আমায়।

>>পায়েল
>>হুমম
>>রেডি হও তো
>>কেনো? কোথায় যাবা?
>>আগে রেডি হও। পরে যেখানে যাওয়ার যাবো।
>>আচ্ছা।দাড়াও আসতেছি।
>>দাঁড়াতে পারবো না।
>>বসেই থাকো তাহলে।

হ্যা আজ বউকে নিয়ে ডিনার করতে যাবো বাহিরে। এই ফাঁকে কিছুটা সময় দিতে পারবো তাকে।তবে বৃষ্টি না নামলেই হবে। এই দিনটাই হলো বৃষ্টিময়। যেটা অনেক রোমান্টিক মনে হয়। একটু পর রেডি হয়ে আসে পায়েল।তারপর বের হলাম দুজন। রিক্সা দিয়ে ঘুরছিলাম আমি আর পায়েল। প্রায় অনেকদিন পরই একসাথে বের হলাম।পায়েল বাসায় থাকতে থাকতে বোড়িং হতো। সেটা আমি বুঝতে পারতাম কিন্তু সে কখনো মুখ খুলে বলেনি।পায়েলের মতো এত ভাল একটা বউ পাওয়া সত্যি ভাগ্যের ব্যাপার। আকাশ মেঘলা হয়ে আছে সাথে মিষ্টি বাতাস তার মাঝে আমরা।খুব রোমান্টিক একটা দিন ছিলো।

ডিনার করে নিলাম। ডিনার শেষ করে শপিং এ গেলাম। পায়েল শপিং করলো তার জন্য এবং আমার জন্য।পরে বাসায় আসবো রিক্সায় উঠলাম।মাঝ পথে আসতেই সেই রকম বৃষ্টি শুরু হলো। রাত তখন সাড়ে নয় টা। বিজে গেলাম দুজনই ঐ রাতে আবার বিজতে হলো বৃষ্টিতে।বাসায় এসে পৌঁছলাম। ড্রেস চেঞ্জ করে নিলাম। সেই রাত দুজন দুজনকে ভালবেসে ছিলাম। ভালবাসার রাত ছিল। তবে ঠান্ডা লেগে গেছে বৃষ্টিতে বিজে।সে রাতে ভালবেসে ভোর হলো।

গল্পের বিষয়:
ভালবাসা

Share This Post

সর্বাধিক পঠিত