জোর করে বিয়ে

জোর করে বিয়ে

আকাশ তুই কি আমাকে ভালোবাসিস। পাগল তোর মতো পেত্নী কে ভালবাসতে যাব কোন সুখে। আচ্ছা আমার মধ্যে কি এমন কম আছে যে যার জন্য তুই আমাকে ভালবাসিস না।। দেখ বেপার টা সেখানে না তুই আমার বেস্ট ফ্রেন্ড তোর সাথে রিলেশন করলে আমাদের রিলেশন বেশি দিন থাকবে না।। তাহলে বিয়ে করি।। পাগল তোর মতো গুন্ডি পেত্নী কে বিয়ে করব আমি।। হু দেখিস এক দিন আমিই তোর বউ হব।তখন বুঝাবো মজা। আমার বয়েই গেছে তোকে বিয়ে করতে।তোকে বিয়ে করার চেয়ে একটা কানা মেয়ে কে বিয়ে করার অনেক ভালো।

ঐ কি বললি। তুই অন্য মেয়ে কে বিয়ে করবি??দারা তোকে আজ আমি ওরে বাবা ক্ষেপে গেছে না যানি কি করে।দিলাম এক দোড়।এক দৌরে নিরাপদ জায়গায় চলে আসলাম।ওহহ সরি আপাদের তো আমার পরিচয় টাই দেয়া হয়নি।আমি আমি এই যা আমার নাম টাই ভুলে গেলাম।আচ্ছা পরে মনে হলে বললব।আমি ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং করছি।এই বার দ্বিতীয় বর্ষে। আর যার সাথে এতো ক্ষন কথা বললাম ও হলো রিম আমারা একসাথে পড়ি।ও আমার বেষ্টু তার থেকেও বেশি কিন্তু কেউ জানে না।প্লিজ ওকে বলবেন না না হলে আমার জিবন টা তামা তামা করে দিবে।ওর বাসা আর আমার বাসা পাশাপাশি।।ওহহহ আসছে আসছে আরে আমার নাম টা মনে আসছে। আমার নাম হলো আকাশ ইসলাম। যাই এখন বাসায় যাই খুব খুদা লাগছে।বাসায় চলে আসলাম ওমা দেখে রিম আমার বাসায় বসে আছে ঐ তুই এখানে কেন??তোর বাড়ি নাই।(আমি) আমি তো আমার বাড়িতেই আছি।(রিম) ঐ থাম থাম তোর বাড়ি মানে???(আমি) ওমা বিয়ের পর তো এই টা আমারই বাড়ি হবে।(রিম) বিয়ে কার বিয়ে কার সাথে।।(আমি) কেনো তোর বিয়ে আমার সাথে।(রিম) অহারে কি শখ।তোর মতো পেত্নী কে বিয়ে করব আমি??(আমি) তুই করবি না তোর বাপ করবে।।(রিম) হু তাহলে আমার বাবাকেই বিয়ে কর।এখন তো তুই আমার মা হয়ে গেলি হিহিহিহিহি।।(আমি)

ঐ আকাশের বাচ্চা বিয়ে তো তোকে আমাকেই করতে হবে।জোর করে হলেও তোকে আমি বিয়ে করব।(র্শাটের কলার ধরে বলল রিম) সে টা পরে দেখা যাবে। যা ভাগ এখন।(আমি) মামনি দেখো তোমার ছেলে আমাকে বের করে দিচ্ছে|(রিম) (আমার আম্মুকে মামনি বলে ডাকে|আর আমার আম্মু তো আমার থেকে ওকে ভালোবাসে) এই কে রে কার এতো বড় সাহস যে আমার মেয়ে বের করে দেই|(আম্মু) মামনি তোমার ছেলে|(রিম) ঐ হতছরা তোর কি খায়ে পড়ে কোনো কাজ নাই সব সময় আমার মেয়েটার পিছনে পরে থাকিস|(আম্মু) হু ঐ তো তোমার মেয়ে আর আমি তো বানের জলে ভেসে আসেছি।(আমি) হুম আসছিস তো।(রিম) ঐ রিমের বাচ্চা তুই এখনো আছিস।যা কইতাছি না হলে তোরে মাইরালামু।(আমি) মামনি দেখছো তোমার ছেলে কি বলে।(রিম) হু দেখতেছি ওর এত্য বড় সাহস হয়ছে আমার মেয়ে কে মেরে ফেলতে চায়।আজ ওর খাওয়া বন্ধ।(আম্মু) আম্মু এ কেমন বিচার।(আমি) মামনি তুমি এমন ব্যবস্তা কর যেন ও চাইলেও আমাকে বের করে দিতে না পারে।(রিম) কি কইলি মা তুই।আবার বলতো।(আম্মু) যাহ আমি আর বলতে পারব না।(রিম)

বলে দৌর দিয়ে চলে গেলো।আমি কিছুই বুঝলাম না।দূর খুদাও লাগছে খাওয়াও বন্ধ করে দিলো।কিছু ভাল্লাগেনা। যাই রুমে যায়ে সুয়ে থাকি।রুমে এসে সুয়ে আছি একটু পর কে যেনো দরজায় ধাক্কা মারলো।হয়তো আম্মু হবে।উঠে দরজা খুলে দিয়ে দেখি রিম ঐ তুই আবার কি করতে আসছিস।খাওয়া বন্ধ করে শান্তি হয়নি।(আমি) দেখি সর রুমে ঢুকতে দে।(রিম) আমাকে সরে দিয়ে রুমে ঢুকে পরল।ওমা দেখি সাথে করে খাবার ও আনছে। হা করে কি দেখছিস আয় খেয়ে নে।(রিম) খাবোনা নিয়ে যা। (ভাব নিয়ে বললাম) থাক আর ভাব নিতে হবে না।এখন না খাইলে পরে আর খাইতে পারবি না।তারাতারি খেয়ে নে।(রিম) যাহ একটু ভাব নিলাম তাও বুঝতে পারছে।খুদাও লাগছে কি আর করার খেয়ে নেই।আমি খাচ্ছি ওর ঐ আমার দিকে চেয়ে আছে ঐ এই ভাবে দেখছিস কেন???(আমি) ইসস কবে থেকেভযে তোকে এই ভাবে খাওয়াবো।(রিম) সেই স্বপ্ন দেখে লাভ নাই। আমি তোকে বিয়ে কিরছিনা।(আমি) সেটা পরে দেখা যাবে খা এখন।(রিম)

চুপ চাপ খাওয়া শেষ করলাম। তারপর ও চলে গেলো।যাক খাওয়া টা তো হলো।অনেক খাইছি এখন একটু ঘুমাই।ঘুম থেকে থেকে উঠলাম বিকেলে।ফ্রেশ হয়ে খেলতে গেলাম।খেলা শেষ করে একটু আড্ডা দিচ্ছি বন্ধুদের সাথে তখনি ফোনটা বেজে উঠলো। ফোণ বের করে দেখি রিম ফোন করছে ধরলাম না।আবার ফোন দিছে ঐ তোর সমস্যা কি হু ফোন ধরিস না কেন হু।(রিম) আমার ইচ্ছা কি হয়ছে বল তারাতারি।(আমি) কই তুই???(রিম) বন্ধুদের সাথে আড্ডা দিচ্ছি কেন কি হয়ছে।(আমি) কি এতো রাতে আড্ডা দিচ্ছিস এখনি বাসায় আয়।(রিম) ঐ তুই কে রে তোর কথা শুনা লাগবে কেন আমার হুম।।(আমি) আমি কে দারা এখনি বুঝবি।বলেই ফোনটা কেটে দিলো। আমি আমার আড্ডায় মেতে উঠলাম একটু পর আবার ফোনটা বেজে উঠলো।দূর আর প্যারা ভাল্লাগেনা। ফোনটা বের করে দেখি আব্বু ফোন করছে।এই সারছে শয়তান টা মনে হয় আব্বু কে ফোন করে বলছে।ভয়ে ভয়ে ফোন টা ধরলাম।

হ্যালো আব্বু।।(আমি) ঐ হারামজাদা তুই এতো ক্ষন বাহিরে কি করছিস হু।তারাতারি বাসায় যা।(আম্মু) (আসলে আমি আব্বু কে চরম ভয় পায় আর আব্বু বাহিরে থাকে চাকুরির জন্য।) জি আব্বু যাচ্ছি তো আমি বাসায়।এইতো আমি বাসার সামনেই আছি।(আমি) ঠিক আছে তারাতারি বাসায় যা।(আব্বু) আচ্ছা আব্বু।রাখছি এখন।(আমি) ফোনটা রেখে বাসায় রওনা দিলাম।বাসায় এসে দেখি আম্মু সিরিয়াল দেখছে। আম্মু সিরিয়াল দেখা বাদ দাও তো।কি দেখো এই গুলা।(আমি) ঐ চিল্লাস না যা এখম ডিস্টার্ব করিস না।।(আম্মু) হাই খোদা তুমি এই সিরিয়ালের চ্যালেন উঠাই নাও।(আমি) ঐ হারজাদা গেলি এখান থেকে।।(আম্মু) হু যাচ্ছি যাচ্ছি।(আমি) তারপর রুমে চলে আসলাম।সুয়ে সুয়ে গান প্রিয় গান টা শুনছিলাম।হঠাৎ ফোনটা বেজে উঠল। এখন আবার কে ফোন দিলো দেখি রিম একটু ঝারি দেই ঐ তোর কি কোনো কাজ নাই।আমার পিছনে পরে থাকিস কেন হুম।(আমি) না নেই তোর কেনো সমস্যা।। (রিম)

হুম অনেক সমস্যা। (আমি) তোর সমস্যা তোর কাছেই রাখ।রাতে খাইছিস???(রিম) আমি খাই না খাই তোর কি হুম।(আমি) বাহঃ আমার বাবু টা দেখি কথা বলতে শিখে গেছে।আসব তোর বাসায়।(রিম) এই না না আসতে হবে না।এখনো খাইনি।একটু পরে খাব।তুই খাইছিস???(আমি) বাসায় আসলে নির্ঘাত কিছু একটা করে ফেলবে। এই তো গুড বয়।তুই না খাইলে আমি কখনো খাইছি।যা এখন খা তারপরে বলবি আমাকে।(রিম) আচ্ছা ঠিক আছে।রাখ এখন।(আমি) তারপর ফোনটা রেখে খাইতে গেলাম আম্মু খেতে দাও খুদা লাগছে।(আমি) হু বস দিচ্ছি।(আম্মু) তারপর আম্মু খাইতে দিলো খাওয়া শেষ করে রুমে এসে রিম কে ফোন দিলাম ক্রিং… ক্রিং… ক্রিং…. ক্রিং…. হু হ্যালো খাইছিস????(রিম) হুম খাইছি।তুই খাইছিস????(আমি) না রে খাইনি এখন খাবো।(রিম) আচ্ছা খা তাহলে রাখছি এখন।(আমি) ওকে বাই।ভালো থাকিস।(রিম) ফোন রেখে একটু ফেবু তে ঢুকলাম। দেখি আমাদের ক্লাসের ক্রাশ এক্টিব আছে।ওর সাথেই কিছু ক্ষন চ্যাটিং করে ঘুমিয়ে পরলাম।সকালে ঘুম ভাঙ্গল আম্মুর ডাকে। আকাশ উঠ অনেক বেলা হয়ে গেছে।(আম্মু) হুম আম্মু উঠছি।(আমি)

তারপর ফ্রেশ হয়ে নাস্তা করতে গেলাম।নাস্তা শেষ করে ক্যাম্পাসে যাবার জন্য রেডি হয়ে বেরিয়ে পরলাম।পিছন থেকে কে যেনো ঘুরে দেখি কেডা।এমা এতো দেখি রিম যাই তারাতারি যাই না হলে সারা রাস্তা বক বক করবে।ঘুরেই হাটা শুরু করলাম।একটু পর পিছনে টান অনুভব করলাম।পিছনে ঘুরে দেখি রিম কলার ধরে আছে ঐ হারামি আমাকে দেখে পালাচ্ছিস কেন হুম।।(রিম) কই পালাচ্ছি আমি??আমি এমনিই যাচ্ছিলাম।(আমি) হু দেখি পালাছিলি না এমনি যাচ্ছিলি।চল এখন তারাতারি।(রিম) সারা রাস্তা বকবক করে ক্যাম্পাসে আসলাম।এই জন্য ওর সাথে আসিনা।যাই এখন ক্লাসে যাই।ক্লাস শেষ হয়ার আগেই বের হলাম যাতে রিমের বকবকানি শুনতে না হয়।এই কে এইটা মেয়ে নাকি পরি পুরাই ক্রাশড।যাই একটু কথা বলি। এই যে আপু এই কোন ইয়ারে আপনি।(আমি) ফাস্ট ইয়ারে।।(মেয়েটি) ওহহ তারমানে জুনিয়র। (আমি) হুম ভাইয়া।।(মেয়েটি) এই শুনো তুমি খুব সুন্দর।তোমাকে দেখে আমি ক্রাশ খাইছি।তোমাকে প্রথম দেখেই ভালবেসে ফেলেছি।I love u…তোমাকে এখন কিছু বলতে হবে না।ভেবে বলিও।।।

কিছু বলার সুজগ না দিয়েই চলে আসতে যাব তখনি দেখি রিম।রাগি লুক নিয়ে তাকিয়ে আছে।ওরে বাবা যে ভাবে তাকাচ্ছে মনে হচ্ছে গিলে খাবে।ভয়ে চলে আসলাম।বাসায় ও যাওয়া যাবে না গেলেই কপালে শনি আছে।চলে গেলাম এক ফ্রেন্ডের বাসায়।খুব টেনশন হচ্ছে বাসায় গেলে যে কি করে।বাসায় যাব একবারে রাতে।বন্ধুর এখানে দুপুরে খেলাম বিকালটা মুভি দেখে পার করে দিলাম।সন্ধ্যার দিকে বাসায় রওনা দিলাম।বাসায় এসে দেখি বাসাটা সাজানো।কি রে ভুল করে অন্যের বাসায় চলে আসলাম না কি।ভালো করে দেখি গেট টা না ঠিক ই তো আছে।বাসায় দরজায় কলিং বেল বাজালাম।দরজা খুলা মাত্রই আমি তো আবাক  ঠাসসসস ঠাসসসসস ঐ হারামজাদা কই ছিলি এতখন।(আব্বু) ফ্রেন্ড এর বাসায় আ..আব্বু।তুমি কখন আসলা??(আমি) আসছি তো বিকালে।যা এখন রুমে পাঞ্জাবি রাখা আছে তারাতারি পরে রেডি হয়ে নে।(আব্বু) কেনো আব্বু???(আমি) কথা কম বল। তারাতারি যা।

তারপর রুমে এসে পাঞ্জাবি পরে রেডি হলাম।আব্বু রুমে এসে নিয়ে গেলো।গাড়িতে উঠে বসলাম।গাড়ি একটা কমিউনিটি সেন্টারের সামনে দারালো।কার বিয়ে রে বাবা যার জন্য আমাকে থাপ্পড় খেতে হলো।ভিতরে ঢুকে তো আমি আবাক আরে এতো রিম।তাও আবার বউ সেজে বসে আছে।যাক ভালোই হলো ওর বিয়ে হলে ভালোই হবে।একি আমাকে ওর পাশে বসাচ্ছে কেন?? আব্বু আমি এখনে বসব কেনো।(আমি) আজ তোর আর রিমের বিয়ে।(আব্বু) আমার তো মাথায় আকাশ ভেঙ্গে পরলো। আব্বু আমি এই বিয়ে করবো না।(আমি) চুপ করে বসে থাক।(আব্বু) কি আর করার চুপ চাপ বিয়ে টা সেরে ফেললাম।বিয়ে করে রিম কে আমাদের বাসায় নিয়ে আসলাম।রিম আমার রুমে বসে আছে।আমি তো ভয়ে রুমে ঢুকছি না ঢুকলে যে কি করে।ছাদে বসে আছি একটু পরে আব্বু আসল। কি রে এখনে কি করিস। বউমা কে রুমে বসে রেখে তুই এখানে কেনো রুমে যা। হুম যাচ্ছি।।(আমার জীবন টা তেজপাত করে দিলা) মনে মনে। তারপর রুমে ঢুকলাম দেখি রিম খাটে বসে আছে।আমাকে দেখে খাট থেকে নামল সালাম করবে মনে হয়।

কাছে আসেই ঠাসসসস ঠাসসসস ঐ তুই আমাকে মারলি কেন???(আমি) আরও মারব।তুই ঐ মেয়েজে প্রোপজ করছিস কেন হু।(রিম) আমার ভালো লাগছে আমি করছি তোর কি??আর আমি এই বিয়ে মানি না।তুই আমাকে জোর করে বিয়ে করছিস।(আমি) মানবি না দারা বাবা বাবা ঐ দারা দারা আমি মানবো তো।আমার লক্ষি বউ।আব্বু কে বলিস না প্লিজ।(আমি) হু এইতো গুড বয়।এখন আমাকে প্রোপজ কর।(রিম) পারবো না যা ভাগ।(আমি) বাবা ঐ চুপ কর করছি করছি।(আমি) হু কর।। ওগো আমার পেত্নী তুমি কি আমার জিবনটা তেজপাতা করে দিবা।।(আমি) হুম দিব দিব।।শুনো কোনো মেয়ের দিকে তাকাবা না।কোনো মেয়ের সাথে কথা বলবো না ওকে।।(রিম) ঠিক আছে সোনা বউ।।আসো একটু তোমাকে জরিয়ে ধরি।।(আমি) উহুহু হবে না।তোমাকে আজ শাস্তি পেতে হবে।(রিম) কেনো কেনো??(আমি) কারন আজ তুমি অন্য মেয়ে কে প্রোপজ করেছো।তাই আজ তুমি ফ্লোরে ঘুমাবা।(রিম)

এ কেমন বিচার। আজ মাফ করে দিলে হয় না বাবু।(আমি) বেশি কথা বললে শাস্তি আরো বেশি হবে।(রিম) কি আর করার ফ্লোরেই ঘুমাই।মাঝ রাতে বুকটা ভারি ভারি লাগছে।চোখ খুলে দেখি রিম বুকে মাথা দিয়ে শুয়ে আছে।একটু নড়তেই ওর ঘুম ভেঙ্গে গেলো কি বেপার আমাকে নিচে শুতে বলে নিজেই এখন নিচে শুয়ে পরছো।(আমি) চুপ বেশি কথা বলবা না।আমি রোজ তোমার বুকে মাথা রেখে ঘুমাবো বুঝছো।(রিম) হুমম বুঝছি পাগলি টা জরিয়ে ধরে।(আমি) এই ভাবেই ধরে রাখবা তো। (রিম) হুম সারা জীবন রাখবো।(আমি)

I love u so much akash…

love u to paglli……

সমাপ্ত

গল্পের বিষয়:
ভালবাসা

Share This Post

আরও গল্প

সর্বাধিক পঠিত