শুভ আর শ্রেয়ার লাভ স্টোরি

শুভ আর শ্রেয়ার লাভ স্টোরি

সকাল ৯:৩০ মিনিট…!!
ক্লিং ক্লিং ক্লিং……..??
-কে….??
-জ্বী মা আমি….!!
.
দরজাটা খুলে………
-ওমা বউমা তুমি……!! দেখ কান্ড তুমি আসবে তাহলে ফোন করলে না কেন…..?? ও রাজীব ও এসেছে।।(শুভ’র মা)
-হুমমম, মা রাজীবকে সাথে নিয়ে এসেছি।(শ্রেয়া)
-খু্ব ভালো করেছ মা…..আসো ভেতরে আসো…..!!
লাগেজটা ড্রয়িংরুমে রেখে……
-মা, ও কি অফিসে গেছে….??(শ্রেয়া)
-আর বলোনা….সেই কখন থেকে ডাকছি ঘুম থেকে উঠছেই না। আমার কথা কি আর এখন শুনে।

তুমি থাকলে একটু ভালো হত। যাক, এখন তুমি এসেছ…..দেখ ওঠে কিনা….??
.
তারপর……
শ্রেয়া শুভ’র বেডরুমে গিয়ে শুভ’র মাথার কাছে বসে। কি আরামে ঘুমাচ্ছে…!!

সারারাত কি করে এমন যে এত বেলা পর্যন্ত ঘুমায়……..?? ওর চাকরি যে কিভাবে থাকে, কিচ্ছু বুঝিনা…..??
শ্রেয়া শুভকে হাত দিয়ে ধাক্কা দিচ্ছে………
-উফ মা…ডিস্টার্ব করো না তো…….!! একটু ঘুমোতে দাও…..!!(শুভ)
শ্রেয়া আবার শুভকে নাড়া দেয়……
-ইসসসসসস, কি যন্ত্রনা…..!! বললাম না অফিসে যাব না…!!(শুভ)
-কেন অফিসে যাবেনা….??(শ্রেয়া)
-এমনিতেই যাব না…!! তুমি এখন যাও এখান থেকে…..!!
-চলে যাবো…!! এত দূর থেকে আসলাম….!!
শুভ ঘুমের মধ্যেই ভাবনায় পড়ে গেল, কন্ঠটা তো মায়ের মনে হচ্ছেনা….??

হঠাৎ টান টান চোখে তাকায়….দেখেই অবাক….!! শুভ চিৎকার করে ওঠে…….
-মা, ভূত……..ভূত…….মা আমাকে বাঁচাও…….!!
ওপাশের রুম থেকে মা দৌঁড়ে চলে আসল…..
-কি হয়েছে তোর….?? চিৎকার করছিস কেন…..??(শুভ’র মা)
-ভূত……ভূত….!!(শুভ)
-কোথায় ভূত….?? কিসের ভূত…..??
-এই যে দেখছনা….শ্রেয়ার রূপ ধরে বসে আছে…..!!
-দূর…….গাঁধা কোথাকার….?? এটা ভূত না। এটা শ্রেয়া তোর বউ শ্রেয়া।
-আমার বউ শ্রেয়া….!! এখানে কি করছে….?? শ্রেয়া তো ঢাকায় থাকে…..!!
-ইসসস.. মারবো এক থাপ্পর….!! কিছুক্ষণ আগেই ঢাকা থেকে এসেছে..!!

আরো ঘুমাও, বেশি করে ঘুমাও……!! তাহলে এরকম হ্যালোসিনেশন হবেনা…..!!
তারপর মা রেগেমেগে চলে গেলেন। শ্রেয়া হাসতে হাসতে জিজ্ঞাসা করল……
-আমাকে দেখে এত ভয় পেলে….?? আর তুমি আমাকেও চিনতে পারলে না….??
-আরে দ্যাত…….আমি তো স্বপ্নে তোমাকেই দেখছিলাম!! আমরা দু’জন নদীর ধারে বসে আছি।

তুমি আমার কাঁধে মাথা রেখে কথা বলছিলে আর আমি তোমার হাতটা ঝাপটিয়ে ধরে কল্পনার জগতে ভাসছিলাম।

ঠিক এই মূহুর্তেই মনে করলাম মা ডিস্টার্ব করল। চোখ মেলে দেখি তুমি……তাহলে বল ভয় পাবো না কেন……??
-ও তুমি আমাকে নিয়ে স্বপ্ন দেখছিলে…..??
-তাহলে কি মিথ্যা বলছি নাকি….??
-না এটা বলিনি। তুমি তাহলে আমাকে নিয়ে ভাব….!!
-আরে দ্যাত……আমাকে এক গ্লাস পানি দাও….!! খুব ভয় পেয়েছিলাম।।

আর তোমাকে নিয়ে ভাববো না তো কাকে নিয়ে ভাববো……?? নায়িকা ক্যাটরিনা কে নিয়ে……??
-আমার তো তাই মনে হয়……!!
-তুমি এখন পানি দিবে….??
-আচ্ছা দিচ্ছি….!!
-তুমি আজ হঠাৎ সকাল সকাল কিছু না বলে চলে আসলে যে….??
-কেন নিষেধ নাকি…..?? আমার স্বামীর বাসায় আমি আসব, তোমার কোন সমস্যা…..??
-না, মোটেই না।
-তুমি আমাকে কিছু না বলে ঢাকায় যেতে পার….আর আমার ইচ্ছে হলে আমার স্বামীর বাসায় আসতে পারবো না…….??

আচ্ছা, তুমি অফিসে যাবে না কেন….??
-দূর ভাল্লাগেনা…..সকাল সকাল ঘুম থেকে ওঠে যেতে। তুমি এখানে একটু বস……!!

অনেকদিন যাবত তোমাকে দেখি না…!! এখন একটু দেখি।
-যাও…..!! এখন এসেছি দেখার অনেক সময় আছে। এখন মাকে গিয়ে সাহায্য করি……!!
-(শ্রেয়া বসা থেকে ওঠতে যাবে এই মূহুর্তে শুভ শ্রেয়ার হাতটা জোর করে টেনে ধরে) এই কোথায় যাচ্ছ…..?? একটু থাকনা……!!
-তুমি ছাড়বে…..?? মা কিন্তু দেখে ফেলবে….!!
-দূর ভাল্লাগেনা……!! এতদিন পর দেখা হল একটু দেখিনা তোমাকে…..!!
-ছাড় আমাকে…..!! পরে দেখবে, এখন ওঠ!! ফ্রেশ হয়ে আসো নাস্তা খাবে…..!! আমি গিয়ে দেখি মা কি নাস্তা বানাচ্ছে……??
-আচ্ছা শোন, তুমি কি একাই এসেছ……?? সাথে কেউ আসেনি…..??
-তোমার কি মনে হয় আমি একা আসব…..?? রাজীবকে সাথে নিয়ে এসেছি।
-ও শালাবাবু…..!!
.
তারপর ১১ টায়………
শুভ ড্রয়িংরুমে বসে শালাবাবুর সাথে খুব মজা করছে।

ঠিক এই মূহুর্তে সে খেয়াল করল তার মহারাণী স্নান করে ভেজা চুলে হাত নাড়াতে নাড়াতে রুমে যাচ্ছে।

মহারাণী শ্রেয়া ড্রেসিংটেবিলে বসতে যাবে এই মূহুর্তে পিছন থেকে হাতটা ধরে শ্রেয়াকে ঘুরিয়ে শুভ তার চোখের সামনে মুখটা নিয়ে আসলো।

শ্রেয়াকে জড়িয়ে ধরে শ্রেয়ার কাছে ঝুঁকে পড়ছে সে……শ্রেয়া অদ্ভুদ দৃষ্টিতে তাকিয়ে রইল রহস্যময়ভাবে।

শ্রেয়া ভাবছে কিছু একটা ঘটতে যাবে এমন সময় দেখে শুভ সিঁদুরের কৌটা থেকে বাম হাত দিয়ে এক চিমটি সিঁদুর নিয়ে শ্রেয়ার সিথিতে পড়িয়ে দিল।

এরপর শ্রেয়া শুভকে ধাক্কা দিয়ে ড্রেসিংটেবিলের সামনে বসে গেল। শুভও নাছোরবান্দা…!! পিছন থেকে জড়িয়ে ধরে বলল……
-কি হয়েছে মহারাণীর….?? এত দেমাগ কেন আজ….??
-(শ্রেয়া আয়নার দিকে তাকিয়ে শুভকে দেখছে আর মুচকি হাসছে)
-(শুভ শ্রেয়ার চুলগুলো বাম পাশ থেকে ডান পাশে সরিয়ে গাড়ে একটা আলতো করে চুমু দিয়ে) তোমার পরীক্ষা কবে…..??
-দু’মাস পর…!! তোমাকে খুব মনে পড়ছিল তাই না এসে পারলাম না…..!!

আর ভাবলাম মাও অনেকদিন যাবত বলছিল এখানে আসতে সব মিলিয়ে চলেই আসলাম।

পরীক্ষাটা দিয়েই একেবারে চলে আসব……!! তখন তোমার সাথে সারারাত গল্প করব…..!! তুমি থাকবেনা আমার পাশে…..??
-হুমমমম, আমি সর্বদা প্রস্তুত মহারাণীর সেবায়…..!!
-ঢং কত……?? মহারাণীর সেবা করতে…..তাহলে মহারাণীর কথা শোন না কেন……??
-আচ্ছা শোন, বিকেলে ঘুরতে যাবে…..??
-কোথায়…..??
-লোকে যেখানে প্রেম করে….!!
-প্রেম করতে যাব…??
-হুমমমম, ব্রহ্মপুত্রের ধারে বসে তুমি আর আমি বাদাম খাব আর দুষ্টামি করব……!!
-হুমমমমম, যাব।
.
রাত ৯টা বাজে………
ঠিক এই মূহুর্তে শুভ’র ফোন বেজে ওঠল…..!!
-হ্যালো…..!! (শুভ)
-কোথায় তুমি…??(শ্রেয়া)
-রেস্টুরেন্টে।
-ওখানে কি কর……??
-মানুষ এখানে কি করে……??
-আসবে কখন……??
-একটু দেরি হবে।।
-কি করছ…..দেরি হবে কেন….?? রাজীব কোথায়…??
-আছে, আশে পাশেই আছে।
-আশে পাশে মানে তুমি কি কর তাহলে…..??
-আমি প্রেম করছি। গার্লফ্রেন্ডের সাথে দেখা করতে আসছি। এখন তার সাথে জুস খাচ্ছি আর গল্প করছি। এখন ডিস্টার্ব করো না পরে আসব…..!!
-কি…….??? গার্লফ্রেন্ড…..?? ফাইজলামি করছ আমার সাথে….??
-ফাইজলামি করব কেন…?? রেস্টুরেন্টে তো সবাই গার্লফ্রেন্ডকে নিয়ে আসে। আমিও আসছি।

এখন দু’জনে বসে চুটিয়ে প্রেম করছি……!! তুমি এসে দেখে যাও…..!!
-কি বলছ তুমি এসব……??
-কথা বলবে…?? দাঁড়াও ওর সাথে তোমাকে পরিচয় করিয়ে দিচ্ছি…..!!
সামনে বসে বসে রাজীব তার জামাইবাবুর কথা শুনে হাসতে হাসতে একাকার হয়ে যাচ্ছে। বেচারী দিদির না জানি কেমন লাগছে……!!
-হ্যালো দিদি, জামাইবাবু তোর সাথে মজা করছিল। আমরা এখন খাচ্ছি…..আর আসতে একটু দেরি হবে। অনেক মজা করছি আমরা।(রাজীব)
-ও আমার সাথে মজা করা হচ্ছে…..!! ও আসুক আজ, ওর মজা আমি দেখাব….!! এই শোন, তাড়াতাড়ি চলে আসবি….!!(শ্রেয়া)
টুড……টুড…….টুড………!!
-জামাইবাবু, দিদি মনে হয় ভীষণ রেগে গেছে…..!! তাড়াতাড়ি বাসায় যেতে হবে।(রাজীব)
-তোমার দিদিকে দেখে ভয় পাও নাকি…..??(শুভ)
-ভয়…….!! একটু তো করেই।।
-আরে এটা কোন ব্যাপার না….!! একদিন দেরি হলে কিছু হবে না। আচ্ছা ঠিক আছে, আমরা আর কিছুক্ষণ থেকেই চলে যাব…..!!
.
রাত ১১:৩০ মিনিট…….!!
শুভ বাসায় কলিংবেল বাজাচ্ছে। শ্রেয়া বুঝতে পেরেছে যে, ওরাই এসেছে…..তারপরও ইচ্ছে করেই খুলছে না।

একপর্যায়ে বিরক্তবোধ হয়ে দরজাটা খুলেই ফেলল…..!! সামনে সাক্ষাৎ এক পরী….লাল পরী!!

রাজীব ভয়ে দিদির দিকে না তাকিয়েই বেডরুমে চলে গেল….!! শ্রেয়া রাগী চোখে শুভ’র দিকে তাকিয়ে আছে।

শুভ দরজাটা বন্ধ করে সোজা তার বেডরুমে চলে গেল….!! তারপর…….
-কি ব্যাপার….?? তুমি না গার্লফ্রেন্ড নিয়ে ঘুরাঘুরি করছ….!! তাহলে বাসায় আসার কি দরকার হল……??(শ্রেয়া)
-আরে দ্যাত, বাদ দাও তো…..!! মজা করছিলাম….!!
-আমার সাথে তুমি মজা করছিলে…?? আমি তোমার বেয়াই হই তাই না……??
-ছিঃ ছিঃ ছিঃ। বেয়াই হবে কেন…..?? তুমি তো আমার বউ……মহারাণী!! আমি তোমাকে ছাড়া অন্যকিছু কল্পনা করতে পারি……??
-হয়েছে হয়েছে ঢং কত…..!! আমার খুদা পেয়েছে….চল খেতে যাই…….!! তুমি তো একা একা খেয়েই এসেছ….!! শুধু শুধু আমার কষ্ট।।
-তোমার জন্য খাবার নিয়ে এসেছি….!! চলো তোমাকে খায়িয়ে দিই….!!
-হুহ………!! আচ্ছা শোন, আজ কিন্তু ঘুমাবো না……!! খাওয়ার পর ছাদে গিয়ে বসে থাকব….শুধু তুমি আর আমি!
-না, আজ ঘুমাতে হবে আর তোমার সাথে একটু মজা করব।
-যাও, আমি ঢাকা থেকে এসেছি শুধুমাত্র তোমার সাথে ভালবাসা আদান-প্রদান করতে….!! সো আমরা ছাদেই যাব…!!
-জ্বী মহারাণী আপনার ইচ্ছা…!! তবে একটা কথা, আজ তোমাকে খুব সুন্দর লাগছে…!!

(লাল শাড়ি, কপালে কালো টিপ, চোখে কাজল, হাত ভর্তি চুড়ি সব মিলিয়ে লাল পরী……!!)

তো হঠাৎ রাতে এত সাজগোজ……!! কি ব্যাপার মহারাণী……??
-বললামই তো ছাদে বসে গল্প করব…..!!
সত্যিই আজ অপরূপ সুন্দর লাগছে শ্রেয়াকে। হাতের চুড়িগুলো নড়াচড়া করতেই ঝনঝন করে ওঠে। স্মেলটাও আজ মুগ্ধকর।

যতবাবরই দেখছি শ্রেয়াকে ততবারই প্রেমে পড়ে যাচ্ছি……!! শুভ একটু বেশিই উদ্বিগ্ন হয়ে ওঠল।
.
খাওয়া-দাওয়া শেষ করে ফ্রেশ হয়েছে মাত্র। অমনিই শ্রেয়াকে কোলে তোলে নিল শুভ। শ্রেয়া একদম অপ্রস্তুত ছিল।
-কি শুরু করলা…..?? ছাড় ছাড় পড়ে যাবে তো….!!(শ্রেয়)
-পড়তে দিলে তো পড়বে….!!(শুভ)
-শুরু হয়ে গেল তোমার পাগলামী…….?? আচ্ছা, আমি না থাকলে তুমি কি কর….??
-কি আর করব…?? সোজা দু’হাত পা এলিয়ে বিছানায় ঢলে পড়ি…..!!……. I love u Shreya……!!
-I love u too……!!
-I love u……!!
-I love u……!!
-Love u too…….!!
-Love u too…..!!
এবার শ্রেয়ার কেমন জানি লজ্জা লাগছে…..!! শুভ’র পাগলামীটা শ্রেয়ার কাছে ভালই লাগে…..!!

মুখে মুখে না বলে……কিন্তু মনে মনে সে এটাই চায় যে তার স্বামী তাকে অনেক ভালবাসুক……..!!

গল্পের বিষয়:
ভালবাসা

Share This Post

সর্বাধিক পঠিত