ফাজিল পরি

ফাজিল পরি

অচেনা : পরি ও পরি
আমি : ভাবতেছি আমার নাম তো পরি না অন্য কাউকে ডাকে মনে হয় । তাই আর পিছনে তাকালাম না ।
.
.
অচেনা হঠাৎ আমার সামনে এসে , “এই যে ম্যাডাম ডাক দিচ্ছি শুনছেন না যে” ।
.
আমি : আমার নাম পরি না তাই শুনি নি ভাইয়া
অচেনা : আউচ
আমি : কি হইছে
অচেনা : ভাইয়া বলো না গো কষ্ট হয়
আমি : হিহি
অচেনা : হাসলে তোমাকে পরির মতোই লাগে তাই পরি বলে ডাকছি
আমি : এমা আমি তো জানতাম আমি ফাজিল । পরিও আমি ?
অচেনা : হুম
আমি : আম্মু তাইলে আমাকে ভুত থুক্কু জ্বিন নিয়ে যাবে ইইইইইইই
অচেনা : হাহা তুমি পিচ্চিও বটে তা তোমার নাম কি পিচ্চি ?
আমি : আম্মু অচেনার সাথে কথা বলতে মানা করছে । কমু না । আম্মু জানলে মাইরালাইবো । আমি ভাগলাম টাটা ।
.
এই বলে চলে আসলাম । জানি না কে উনি ।
.
.

আমি কোন দিক দিয়ে পরি।
.
না আমি সুন্দর,, না আমার পাখনা আছে।
.
হাই হাই আমার পাখনা গজাইলো তাইলে। এই দাড়ান দাড়ান। আয়নাই দেইখা নেই।
.
আমার পাখনা গজাইছে আমি।উরবার পারুম। ভাবতে ভাবতে আয়নার সামেন গিয়ে দাড়ালাম।
.
না না আমি তো ঠিক ই আছি । ভাগ্যিস নইলে ভাবলাম সবাই আমাকে ভুত ভাববে ।
.
এমন সময় আম্মু ,
.
.
আম্মু : কি রে আজ নাকি বাইরে যাবি ঘুরতে বলছিলি যে
আমি : এমা হ্যা ভুলেই গেছিলাম
আম্মু : প্রেয়সি কে নিয়ে যাইস
আমি : ইইইই না নিবো না
আম্মু : তোর‌ ই তো বোন নিলে কি হয়
আমি : ওয় জ্বালায় খুব
আম্মু : আমি বলছি নিবি মানে নিবি
আমি : দুররর ওকে
.
ইয়ো‌ ইয়ো বিকালে মিমির সাথে‌ঘুরতে যাবো কি মজা । সাথে পেত্নি টাও যাবে ।
.
.
বিকালে ………….
প্রেয়সি : আপু কই যাবি
আমি : ঘুরতে
প্রেয়সি : আমাকে‌ কি কিনে দিবি ?
আমি : বিষ নিবি
প্রেয়সি : না ওটা তুই নে আমাকে ফুচকা দিস
আমি : যা ভাগ
প্রেয়সি : আপু দেখ পিছনে কে জানি হাঁটতেছে
.
আমি পিছনে ঘুরে দেখি এ তো পরি পরি ভাইয়া এমা ।
.
অচেনা : এই যে ফাজিল পরি
আমি : না আমাকে তো পরি ডাকছিল শুধু ।
অচেনা : ম্যাডাম আপনাকেই ডাকতেছি
আমি : এহে এতো কনফিউজ করেন কেন
অচেনা : কেমনে
আমি : এতো নাম দেন একটা নামে ডাকতে পারেন না
অচেনা : তো নাম বলেন না কেন নিজের
আমি : বলবো না
প্রেয়সি : আপুর নাম আনহা
আমি : ওই হারামি বললি কেন
প্রেয়সি : আমাকে চকলেট দিস না তাই
অচেনা : আমি রাজ আর ধন্যবাদ তোমাকে চকলেট আমি দিবো পিচ্চি
প্রেয়সি : সত্যি
অচেনা : তাহলে আজ থেকে আমি আপনার পার্টনার
আমি ভাবতেছি :::::: বোন বোন রইলো না
.
.
মনডা চাইতাছে বিষ কিনা চকলেট এর ভিতর ঢুকায় প্রেয়সি কে দেই ।
.
তারপর ওই ভাইয়া চলে গেছে । কি ভাবছেন পিছু ছাড়ছে । না রে তারপর থেকে আমার ফলোয়ার হয়ে গেছে । সব জায়গায় আমার পিছে পিছে যায় ।
.
আমি ভাবতাম আমিই খালি সবাই‌ কে জ্বালাই । কিন্তু এই ভাইয়া আমাকেও জ্বালায় । সাথে ওই ঘুষখোর প্রেয়সিও উনার টিমে ।
.
মনডা এখন চায় আমিই বিষ খাইয়া মইরা যাই । কিন্তু হপ্পে না । ভুত হইলে তেতুল গাছে বসে থাকতে হইবো ।
.
ইয়ো ইয়ো কলেজে গেলাম ।
রিফা কে জিজ্ঞেস করলাম : কি রে মিমি কই ?
রিফা : মিমির‌ জানি কোন ভাই‌ আসছে‌ । ওদিক দেখ ।
.
যায়ে দেখি ওই রাজ ভাইয়া । দোস্ত দোস্ত না রাহা এতো বড় চিটিং করলি মিমি ।
.
মিমি : আরে আনহা‌ তুই
আমি : আই হেট ইউ
.
মুড টাই নস্ট ওয় আমাকে এভাবে । …….. কান্না করবো এহন ।
.
তারপর থেকে মিমির সাথে আর কথা বলতাম না । রাগ করছি অনেক ।
.
ঝগড়ার দুইদিন পর আমার জ্বর আসলো খুব । তাই আর যাই নি কলেজ ।
.
৫ দিনে মিমি ৫ বার আসছিলো কথা বলি নি ।
.
যদিও মুখ লুকায় হাসতেছিলাম ।‌ আমার একটাই‌ প্রব্লেম রাগ করলে কেউ হাসালেও হেসে ফেলি ।
.
তারপর ৬ তম দিনে রাগ শেষ । শুনলাম রাজ ভাইয়া নাকি এই শহরে এসেই প্রথমেই আমার উপর ক্রাশ খায় । তারপর ফলো করে প্রেমে পড়ে যায় ।
.
একদিন মিমির ফোনে আমার পিক দেখে থ হয় । আর জানে যে আমি ওর বেস্ট ফ্রেন্ড । তারপর আমার ফলো করা ইত্যাদি । কিন্তু আজকের পর আর জ্বালাবে না ভালোই হলো ।‌
.
.
ঝগড়া শেষে আমরা ঘুরতে গেলাম । এমা রাজ ভাইয়াও আসছে ওয়াও আমার প্রিয় সব গিটার হাতে নীল শার্ট এমা আমিই ক্রাশ খায়ে দিবো ।
.
.
আমি : এ খাদিজা তুল কুবরা মিমি এটাও বইলা দিছিস বোন
মিমি
মিমি : না মানে মুখ ফসকে বের হয়ে গেছে
আমি : হারামি
.
সবাই ঘুরলাম । এমা রাজ ভাইয়া গান ও পারে । সেই তো ।
.
.
তারপর থেকে আমাদের বন্ধুদের টিমে রাজ ভাইয়ারো এন্ট্রি হলো উনিও আমাদের ফ্রেন্ড হলেন । রাজ ভাইয়া সত্যি ফাজিল আমার মতোই এ কয়দিনে বুঝছি ।
.
.
আজ রাজ ভাইয়া পালাইলো । ইইইইই মিস করতেছি উনাকে ।
.
এমা আমি প্রেমে পড়লাম নাকি । এরপর আর রাজ ভাইয়ার সাথে কথা হয় নি । মিমির কাছেও নম্বর চাই নি এই ভেবে যে ও‌কি ভাব্বে ।
.
.
১ মাস পর
আমি সত্যি রাজ ভাইয়া কে ভালোবেসে ফেলছি । মিমির কাছে আজ নম্বর‌ নিলাম । কল দিয়ে দেখি ফোন বন্ধ । দুররর ভাগ্যই খারাপ ।
.
পরের দিন শুনলাম আমাকে নাকি ছেলে দেখতে আসবে দুরররর বিষ টা আমারই খাওয়া দরকার ।
.
এমা মিমি পাত্র থুক্কু পাত্র পক্ষ । এমা এ তো রাজ ভাইয়া ।
.
একা কথা বলতে পাঠালো যখন ।
আমি : আপনার ফোন বন্ধ কেন ছিল ?
রাজ : নিশ্চুপ
আমি : কথা বলুন
রাজ : ফাজিল পরি আমাকে এতো জ্বালাইছো তোমাকে কেন ছাড়বো আমি হাহা ।
আমি : আপনি অনেক পচা রাজ ভাইয়া
রাজ : তুমিও পচার বউ হবা
আমি : ইইই বললেই হলো আমি বিয়েই‌ করবো না
রাজ : ও তাই আমি গেলাম তাইলে
আমি : ইইইই না
রাজ : হিহি তুমিও পিচ্চি
আমি : হিহি হুম
.
এই বলে রাজ আমাকে জড়িয়ে ধরলো ।
.
প্রেয়সি : পার্টনার আমি কিন্তু সব দেখে ফেলছি
রাজ : এই না পার্টনার তোমাকে আমি চকলেট দিবো
প্রেয়সি : ওকে রাজি
আমি : আমার চকলেট কই
রাজ : হে আল্লাহ এ কোন চকলেট খোর এরা
আমি : কি বললেন
রাজ : বউ আর শালি দুটোই দেখি চকলেট খেয়ে আমার পকেট ফাঁকা করবে
.
.
আমি আর প্রেয়সি হেসে বললাম : হুমমমমম
.
………………………………………সমাপ্ত………………………………….

গল্পের বিষয়:
ভালবাসা

Share This Post

সর্বাধিক পঠিত