সর্বকালের সেরা দশ গোলকিপার

সর্বকালের সেরা দশ গোলকিপার

ডিফেন্ডারদের পেরিয়ে ডিবক্সে ঢুকলেন স্ট্রাইকার। শট নিলেন গোল অভিমুখে। কিন্তু গোলকিপারের দুর্দান্ত রিফ্লেক্সে গোল প্রতিহত। এভাবেই যুগ যুগ ধরে গোলপোস্ট সামলে আসছেন গোলকিপাররা। আসুন দেখে নেই ফুটবল ইতিহাসের সেরা দশ গোলকিপারের নাম।

 ১। লেভ ইয়াশিন

সর্বকালের সেরা গোলকিপারদের তালিকা করলে তালিকায় সবার উপরে থাকবে লেভ ইয়াশিনের নাম। ইতিহাসের একমাত্র ব্যালন ডি অর জয়ী গোলকিপার তিনি।

ক্যারিয়ারে ১৫০ টি পেনাল্টি বাঁচিয়েছেন এই কিপার। ২৭০ এর বেশি ক্লিনশিট তার ক্যারিয়ারে। জিতেছেন ফিফার গোলকিপার অফ দ্য সেঞ্চুরি এওয়ার্ড। মজার ব্যাপার হচ্ছে গোলকিপার হওয়ার আগে তিনি ছিলেন তালার কারিগর।

লেভ ইয়াশিন

২। পিটার স্মেইশেল

নব্বইয়ের দশকের সেরা গোলকিপার হিসেবে যোজন যোজন এগিয়ে থাকবেন ইংলিশ এই গোলরক্ষক। ফরওয়ার্ডরা তাকে ভয় পেত । সতীর্থরা সম্মান করত। ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের হয়ে খেলতেন এই কিপার। যখনই দলের প্রয়োজন হয়েছে , একের পর এক দারুণ সব সেভ করে দলের ত্রাতারূপে আবির্ভূত হয়েছেন। নব্বইয়ের দশকে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের একচেটিয়া রাজত্বের পিছনে বিরাট অবদান আছে এই কিপারের।

পিটার স্মেইশেল

৩। ডিনো জফ

এই ইতালিয়ান কিপারকে সবচেয়ে বেশি স্মরণ করা ইতালির ১৯৮২ ওয়ার্ল্ড কাপ জয়ের জন্য। ৪০ বছর বয়সে ক্যাপ্টেন্সি হাতে নিয়ে ইতালিকে ওয়ার্ল্ড কাপ জয়ে অবদান রেখেছেন এই কিপার। ইতালির ইতিহাসে তার দারুণ নেতৃত্বগুণের কারণে তার নাম স্বর্ণাক্ষরে লিখা থাকবে।

ডিনো জফ

৪। সেপ মায়ার

তার ডাকনাম ছিল দ্য ক্যাট। ওয়েস্ট জার্মানি ও বায়ার্নের হয়ে খেলা এই কিপারের অর্জনের তালিকা খুব ছোট নয়। তার অর্জনের খাতায় আছে চারটি বুন্দেসলীগা, চারটি জার্মান কাপ, তিনটি ইউরোপিয়ান কাপ, একটি কাপ উইনার্স কাপ, একটি ইন্টারকন্টিনেন্টাল কাপ, একটি বিশ্বকাপ, একটি ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপ। তিনবার জার্মান ফুটবলার অফ দ্য ইয়ারের পুরষ্কারও ঝুলিতে ভরেছেন এই জার্মান কিপার।

সেপ মায়ার

৫। ইকার ক্যাসিয়াস

স্পেনের স্বর্ণালী যুগের সদস্য ছিলেন ইকার ক্যাসিয়াস। স্পেনের ইতিহাসের সেরা গোলকিপার এই ‘সেইন্ট। মাদ্রিদ এবং স্পেনের হয়ে যা যা জেতা সম্ভব সবই জিতেছেন তিনি। বিশ্বকাপ, ইউরো, লালীগা, কোপা দেল রে লি নেই তার অর্জনের খাতায়। জিতেছেন তিনটি চ্যাম্পিয়ন্স লীগ। বিশ্বকাপ ফাইনাল ও চ্যাম্পিয়ন্স লীগ ফাইনালে ক্লিনশিট রাখার বিরল রেকর্ডও আছে এই স্প্যানিশ কিপারের। এ বছর ২০শে আগস্ট অবসর নেন এই কিপার।

ইকার ক্যাসিয়াস

৬। ম্যানুয়েল নয়্যার

বল পায়ে স্বাচ্ছন্দ্য গোলকিপার খুব কমই আছেন। ম্যানুয়েল নয়্যার তাদের একজন। তাকে বলা হয় সুইপার কিপার। সুইপার কিপার রোলে নয়্যার এতই দুর্দান্ত যে পেপ গার্দিওলা বায়ার্নের দায়িত্বে থাকাকালে এই জার্মান কিপারকে মিডফিল্ডে খেলাতে চেয়ে ছিলেন। সম্প্রতি বায়ার্নের হয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লীগ জিতে দ্বিতীয়বারের মত ট্রেবল জিতেছেন এই কিপার। জার্মানির হয়ে জিতেছেন ওয়ার্ল্ড কাপ। সুইপার কিপার রোল প্লে করে গোলকিপারদের সংজ্ঞাই পালটে দিয়েছেন এই জার্মান।

ম্যানু্যেল নয়্যার

৭। অলিভার কান

একমাত্র গোলকিপার যিনি ওয়ার্ল্ডকাপে গোল্ডেন বল জিতেছেন। খেলার মাঠে ক্রমাগত চিৎকার করে দলকে মোটিভেট করে যেতেন। ডিবক্সের ভেতর তাকে হারানো কঠিনই ছিল। বায়ার্নের হয়ে জিতেছেন আটটি বুন্দেসলীগা। জার্মানির হয়ে জিতেছেন একটি ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপ। জার্মানির ফুটবলার অফ দ্য ইয়ার খেতাব জিতেছেন দুইবার।

অলিভার কান

৮। জিয়ানলুইজি বুফন

৪২ বছর বয়সী এই কিপার নিজের সেরা সময় কাটিয়েছেন ২০০৬ এ। সেবার ইতালির হয়ে বিশ্বকাপ জেতেন জুভেন্টাসের এই লিজেন্ড। ২০০১ থেকে ২০১৮ পর্যন্ত টানা জুভেন্টাসের হয়ে খেলার পর এক বছরের জন্য গিয়েছিলেন পিএসজিতে। তারপর আবার ফিরে আসেন নিজের ক্লাব জুভেন্টাসে। সিরি-আ তে সবচেয়ে বেশি ম্যাচ খেলার ও ক্লিনশিট রাখার রেকর্ড এই ইতালিয়ান গোলকিপারের। টানা বার লীগ ম্যাচ ও ৯৭৪ মিনিট গোল না খাওয়ার রেকর্ড আছে এই গোলকিপারের।

জিয়ানলুইজি বুফন

৯। এডুইন ফন ডার সার

ফন ডার সার এর ক্যারিয়ারে দারুণ একটি রেকর্ড আছে । তিনি একবার টানা ১৩১১ মিনিট কোনো গোল খাননি। আয়াক্স ও ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড দুই দলের হয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লীগ জেতার রেকর্ড আছে এই কিপারের ঝুলিতে। ঝুলিতে আরও রয়েছে চারটি ইংলিশ প্রিমিয়ার লীগ ও চারটি ডাচ এরেডেভাইস লীগ।

এডুইন ফন ডার সার

১০। পিটার চেক

একটি ক্লাবের হয়ে যা যা জেতা সম্ভব তার সবই জিতেছেন চেলসির হয়ে। প্রিমিয়ার লীগে গোলকিপারের দারুণ সব রেকর্ড তার কাছে। প্রিমিয়ার লীগ ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি সেভ, সবচেয়ে বেশি প্রিমিয়ার লীগ গোল্ডেন গ্লাভস এওয়ার্ড, প্রিমিয়ার লীগের এক সিজনে সবচেয়ে বেশি ক্লিনশীট, ২০১০ চ্যাম্পিয়ন্স লীগে সবচেয়ে বেশি সেইভ পার্সেন্টেজ- এসব রেকর্ডের মালিক এই চেক গোলকিপার।

পিটার চেক

গল্পের বিষয়:
ইতিহাস
DMCA.com Protection Status
loading...

Share This Post

আরও গল্প

সর্বাধিক পঠিত